সিঙ্গাপুরে উষ্ণ অভ্যর্থনা পেলেন প্রধানমন্ত্রী


চার দিনের সফরে সিঙ্গাপুরে গিয়ে উষ্ণ অভ্যর্থনা পেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

১১ মার্চ, রবিবার দুপুরে সিঙ্গাপুরের চাঙ্গি বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানান দেশটির কর্মকর্তারা।

সিঙ্গাপুরের প্রধানমন্ত্রী লি সিয়েন লুংয়ের আমন্ত্রণে দেশটিতে যান প্রধানমন্ত্রী। স্থানীয় সময় দুপুর আড়াইটার দিকে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ভিভিআইপি ফ্লাইটে বিমানবন্দরে পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীরা।

সিঙ্গাপুরের পরিবেশ, পানিসম্পদ ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ প্রতিমন্ত্রী ড. অ্যামি খোর ও সিঙ্গাপুরে বাংলাদেশের হাইকমিশনার মো. মোস্তাফিজুর রহমান বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানান।

বিমানবন্দর থেকে প্রধানমন্ত্রীকে মোটর শোভাযাত্রা করে সাংগ্রি-লা হোটেলে নিয়ে যাওয়া হয়। সফরকালে তিনি সেখানে থাকবেন।

সোমবার সিঙ্গাপুর সরকার প্রধানমন্ত্রীকে আনুষ্ঠানিকভাবে অভ্যর্থনা জানাবে। পরে তিনি সিঙ্গাপুরের প্রেসিডেন্ট হালিমা ইয়াকুবের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন। সেদিন সকালে প্রধানমন্ত্রী সিঙ্গাপুরের প্রধানমন্ত্রী লি সিয়েন লুংয়ের সঙ্গে আনুষ্ঠানিক বৈঠক করবেন।

সফরকালে বিভিন্ন ক্ষেত্রে দু্ই দেশের সম্পর্ক আরও জোরদারের লক্ষ্যে ছয়টি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হতে পারে বলে আশা করা হচ্ছে। এর মধ্যে রয়েছে- বাংলাদেশ ইনভেস্টমেন্ট ডেভেলপমেন্ট অথরিটি (বিডা) ও সিঙ্গাপুরের বিনিয়োগকারী প্রতিষ্ঠান ইন্টারন্যাশনাল এন্টারপ্রাইজের (আইই) মধ্যে বিনিয়োগ সহযোগিতা সংক্রান্ত সমঝোতা স্মারক।

মঙ্গলবার সকালে প্রধানমন্ত্রী বিশ্ব ঐতিহ্যের অংশ সিঙ্গাপুরের বোটানিক্যাল গার্ডেনে যাবেন। সেখানে প্রধানমন্ত্রীর  সম্মানে একটি অর্কিডের নামকরণ করা হবে। পরে তিনি সাংগ্রি-লা হোটেলে বাংলাদেশ-সিঙ্গাপুর বিজনেস ফোরামের গোলটেবিল বৈঠকে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেবেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ ও জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হিসেবে রয়েছেন।

সোমবার সিঙ্গাপুরের প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া এক মধ্যাহ্নভোজে অংশ নেবেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী। আগামী ১৪ মার্চ বুধবার তার দেশে ফেরার কথা রয়েছে।