ট্রাম্প আন্তর্জাতিক মাস্তান ও খলনায়ক: মাহাথির


Mahathir trump 15 12 2017 1979652902

ডোনাল্ড ট্রাম্প ও মাহাথির মোহাম্মদ। ছবি: সংগৃহীত

(প্রিয়.কম) জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে ‘আন্তর্জাতিক মাস্তান ও খলনায়ক’ হিসেবে অভিহিত করেছেন মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধানমন্ত্রী ড. মাহাথির মোহাম্মদ। ১৫ ডিসেম্বর শুক্রবার মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরে অবস্থিত যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসের সামনে এক বিক্ষোভে অংশ নিয়ে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘বিশ্বে এখন একজন মাস্তান রয়েছে। ট্রাম্প, নিজের মতো কাউকে খুঁজে নাও। জেরুজালেম সিদ্ধান্ত মুসলিম বিশ্বে ক্ষোভের সৃষ্টি করবে। ট্রাম্পের সিদ্ধান্তের পরিণতি এমন হবে, যেটাকে সন্ত্রাস বলা যাবে।’

জেরুজালেম প্রশ্নে ফিলিস্তিনকে সমর্থন দেওয়ার জন্য মুসলিম বিশ্বের প্রতি আহবান জানিয়ে মাহাথির বলেন, ‘আমাদের সবার উচিত যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট এই ভিলেনকে থামিয়ে দিতে নিজেদের সব শক্তি ব্যবহার করা।’

এর আগে গত সপ্তাহে মালয়েশিয়ার বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাকও জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী ঘোষণার প্রতিবাদে মুসলিম বিশ্বকে সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানান। সর্বশেষ ১৩ ডিসেম্বর ট্রাম্পের সিদ্ধান্তের পাল্টা পূর্ব জেরুজালেমকে ফিলিস্তিনের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেয় ৫৭ মুসলিম দেশের জোট ইসলামী সহযোগিতা সংস্থা (ওআইসি)।

প্রসঙ্গত, ১৯৪৮ সালে ইসরায়েল প্রতিষ্ঠার পর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রই প্রথম দেশ; যারা ইসরায়েলের এই দাবিকে স্বীকৃতি দিয়েছে। ১৯৬৭ সালে মধ্যপ্রাচ্যের যুদ্ধের পর জর্ডানের কাছ থেকে জেরুজালেমের দখল নেয় ইসরায়েল। শহরটিকে আর নিজেদের অবিভাজ্য রাজধানী হিসেবে ঘোষণা করে। ১৯৯৩ সালের ফিলিস্তিনি-ইসরায়েল শান্তি চুক্তিতেও এই শহরের ভবিষ্যৎ আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে ঠিক করা হবে বলে উল্লেখ ছিল।

তবে তা অস্বীকার করে ১৯৬৭ সাল থেকেই অধিকৃত পূর্ব জেরুজালেমে ইহুদি বসতি স্থাপন শুরু করে ইসরায়েল। তবে জেরুসালেমের ওপর ইসরায়েলের দাবি কখনোই আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পায়নি। ইসরায়েলে সব দূতাবাসগুলোই অবস্থিত তেল আবিবে।

বর্তমানে জেরুজালেমে দুই লাখেরও বেশি ইহুদি বসবাস করে। তবে আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী তা অবৈধ বলে বিবেচনা করা হয়। তবে আন্তর্জাতিক আইনের বাধ্যবাধকতায় যুক্তরাষ্ট্র ছাড়া বিশ্বের কোনো দেশই এ পর্যন্ত অবিভক্ত জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়নি।

জেরুসালেমে ইহুদি, খ্রীষ্টান ও ইসলাম- এই তিন ধর্মেরই পবিত্র স্থান। ডোনাল্ড ট্রাম্প কর্তৃক জেরুসালেমকে ইসরায়েলি রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেবার পর ফিলিস্তিনিসহ দেশে দেশে ব্যাপক বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়। এসব বিক্ষোভকে ঘিরে এ পর্যন্ত চারজন নিহত হয়েছে।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*