ডেঙ্গুতে শিশুর মৃত্যু, হাসপাতালে ১৫ দিনে ১৭ লাখ রুপি বিল!


ভারতের দিল্লির কাছে গুরুগ্রামের ফর্টিস নামের বেসরকারি হাসপাতালে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হয় ৭ বছরের এক শিশু। ভর্তির ১৫ দিন পর মারা যায় ওই শিশুটি।

তবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ১৫ দিনের ভর্তি বাবদ তার পরিবারকে ১৭ লাখ রুপির বিল ধরিয়ে দেন। যার মধ্যে ২৭০০ গ্লাভস ও ৬৫০টির বেশি সিরিঞ্জের দাম চার্জ করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

গুরুগ্রামের বাসিন্দা জয়ন্ত সিং এর মেয়ে আদ্যা সিং ৩১ অগস্ট ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে  ফর্টিস হাসপাতালে ভর্তি হয়। সে সময় আদ্যার অবস্থা এতটাই গুরুতর ছিল যে, তাকে পেডিয়াট্রিক ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট (পিআইসিইউ)-তে রাখা হয়। সেখানে ১৫ দিন ধরে তার চিকিত্সা চলে।

অবশেষে চিকিত্সকরা আদ্যার মস্তিষ্কের ৭০ থেকে ৮০ শতাংশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে গেছে এবং এ অবস্থার পুনরুদ্ধার করা সম্ভব নয় বলে জানান। এরপর চিকিত্সকরা প্লাজমা ট্রিটমেন্ট শুরু করলেও শিশুটিকে বাঁচাতে পারেননি।

এদিকে কীভাবে বেসরকারি হাসপাতাল বেআইনিভাবে বিল তৈরি করেছে। এ বিষয়টি খতিয়ে দেখতে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার।

ফর্টিস হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের দাবি, তাদের বিলিংয়ে কোনো ভুলত্রুটি হয়নি, অবশ্য একটি বিবৃতি দিয়ে দাবি করেছে, তারা আদ্যার পরিবারকে তার শারীরিক অবস্থা ও খরচের অংক নিয়ে প্রতিদিন অবহিত রেখেছিল।

তবে দিল্লি ও তার আশেপাশে তাদের বিভিন্ন হাসপাতাল নিয়ে এই ধরনের অভিযোগ নতুন নয়। এর আগেও ফর্টিসের বসন্ত কুঞ্জ শাখায় বিহারের এক গরিব মেহনতি মানুষের বাচ্চার মৃতদেহ মাত্র সাড়ে তিন হাজার রুপি বকেয়ার কারণে আটকে রাখা হয়েছিল।