মিয়ানমারে গণহত্যা বন্ধের দাবিতে মুন্সীগঞ্জে বিক্ষোভ


1506169829-a8ca3b0277eba5d93f60

মিয়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলিম গণহত্যা বন্ধের দাবিতে বাংলাদেশ জমিয়তে ওলামায়ে ইসলাম মুন্সীগঞ্জ ও ঢাকা দক্ষিণ শাখার উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল সমাবেশ পালন করা হয়েছে।

২৩ সেপ্টেম্বর শনিবার বিকেল চারটার দিকে সদর উপজেলার হাটলক্ষীগঞ্জ জামে মসজিদ থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে হাটলক্ষীগঞ্জ জামে মসজিদে এসে শেষ হয়। পরে বিকেল পাঁচটার দিকে মিয়ানমারের অসহায় রোহিঙ্গা মুসলিমদের প্রতি দোয়া করা হয়।

বাংলাদেশ জমিয়তে ওলামায়ে ইসলাম মুন্সীগঞ্জ জেলা শাখার সভাপতি মাওলানা খলিলুর রহমানের সভাপতিত্বে এই বিক্ষোভ মিছিল সমাবেশে জেলার চারটি উপজেলার প্রায় ৩২টি মাদরাসার ছাত্র ও শিক্ষক অংশ নেন।

এ ছাড়াও সদর উপজেলার সব শ্রেণী পেশার প্রায় দেড় হাজারেও বেশি মানুষ স্বতস্ফূর্তভাবে এতে অংশ গ্রহণ করেন। বিক্ষোভ কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ জমিয়তে ওলামায়ে ইসলাম মুন্সীগঞ্জ জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক মাওলানা রশিদ আহম্মেদ, সাংগঠনিক সম্পাদক মুফতি মাহবুবুর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাওলানা জিয়াউল হক কাশিমি, সদর উপজেলা সভাপতি মুফতি রুহুল আমিন, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা ফয়েজুর রহমান, টঙ্গীবাড়ি উপজেলা সভাপতি মুফতি ইসমাইল, সাধারণ সম্পাদক আহমান উল্লাহ, সিরাজদিখান উপজেলা সভাপতি মাওলানা সাইদুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা আব্দুল্লাহ আল-মাসুদ, শ্রীনগর উপজেলা সভাপতি মাওলানা ইউনুস কাশিম, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা খালেদ সাইফুল্লাহসহ কেরানীগঞ্জ সভাপতি আলহাজ¦ হযরত মাওলানা আফজাল হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় বক্তরা মিয়ানমারের গণহত্যা ও নির্যাতনের কথা উল্লেখ করে বলেন, মিয়ানমারে যে গণহত্যা ও নির্যাতন হচ্ছে সেটা আরাকান বাসীর জন্য নয়, কিংবা রোহিঙ্গাদের জন্য নয়, এটা একমাত্র মুসলমানদের উপর নির্যাতন করা হচ্ছে। আজকে যে আরাকান মুসলমানদের নির্যাতন করা হচ্ছে এটা কোন রোগিঙ্গা বা অন্য ধর্মালম্বীদের জন্য নয়, এটা শুধুমাত্র মুসলমানদের নিধন করার জন্য। যে ধর্মে জীব হত্যা মহাপাপ। তারা কীভাবে লক্ষ লক্ষ মানুষ হত্যা করছে। এরা কি জীব নয়? এতো মানুষ হত্যার পরেও বাংলাদেশসহ সারা বিশ্ব তাকিয়ে দেখছে। যেভাবে মানুষগুলোর হাত কাটছে! পা কাটছে! অঙ্গ বিছিন্ন করে হত্যা করা হচ্ছে। এর পরেও এগুলোকে যদি হত্যা না মনে হয়ে! এগুলো যদি মানবাধিকার বিরোদী অপরাদ না হয়! তাহলে এর চাইতে লজ্জাজনক আর কিছুই হতে পারে না। তাই আমরা জাতিসংঘের কাছে এর সঠিক বিচার দাবি করছি। এবং সেই সঙ্গে বাংলাদেশ প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যাবদ জানায় যে, মিয়ানমারের মুসলিমদের বাংলাদেশে আশ্রয় দিয়ে বিশ্ব দরবারে এ নিয়ে অনেক প্রতিবাদ করেছে।