মেসি-নেইমারের ঝলকে বার্সেলোনার এল ক্লাসিকো জয়


messi-30-07-17-1277232709

পারলো না রিয়াল মাদ্রিদ। প্রাক-মৌসুম এল ক্লাসিকো জিতলো বার্সেলোনাই। বাংলাদেশ সময় রোববার অনুষ্ঠিত প্রীতি এল ক্লাসিকোতে কাতালানরা ৩-২ গোলে হারায় রিয়াল মাদ্রিদকে। সেইসঙ্গে ইন্টারন্যাশনাল চ্যাম্পিয়ন্স কাপ নিজেদের শোকেসেই তুলে মেসি-নেইমাররা।

যুক্তরাষ্ট্রের মায়ামির হার্ড রক স্টেডিয়ামে উড়ন্ত সূচনা করে বার্সেলোনা। ম্যাচ শুরুর সাত মিনিটেই ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায় কাতালানরা। প্রথমার্ধের তিন মিনিটেই রিয়ালের জালে বল জড়ান লিওনেল মেসি। আর সাত মিনিটে ইভান রাকিটিচের পা থেকে আসে দ্বিতীয় গোলটি।

তখনই হয়তো অনেক ফুটবলপ্রেমীদের মনে হচ্ছিল ম্যাচটা বোধহয় একতরফাই জেতে নিবে কাতালানরা। কেননা এই ম্যাচে যে খেলছেন না রিয়ালের মূল ভরসা ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। তবে রোনালদো বিহীন রিয়ালও যে কম নয় তা বুঝাতেও খুব বেশি সময় নেয়নি জিদানের এই দলটি।

ম্যাচের ১৪ মিনিটেই রিয়ালের হয়ে গোল করেন মাতেও কোভাসিচ। আর ৩৬ মিনিটে মার্কো এসেনসিও গোল করলে সমতায় ফিরে লস ব্ল্যাঙ্কোসরা। এর ফলে ২-২ গোলের সমতায় নিয়েই প্রথমার্ধের খেলা শেষ করে স্পেনের দুই জায়ান্ট ক্লাব।

বিরতির পর আবারও জ্বলে উঠে বার্সেলোনা। এবার গোল করে বার্সেলোনাকে এগিয়ে দেন জেরার্ড পিকে। প্রথমার্ধের মতো দ্বিতীয়ার্ধের শুরুটা ঠিক একইভাবে করে বার্সেলোনা।

এর পরের সময়টাতে অবশ্য গোল করতে পারেনি আর কোনো দলই। এর ফলে ৩-২ গোলের জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে আর্নেস্তো ভালভার্দের দল। সেইসঙ্গে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী রিয়াল মাদ্রিদকে পরাজিত করে ইন্টারন্যাশনাল চ্যাম্পিয়ন্স কাপের শিরোপাটাও নিজেদের করে নেন মেসি-ইনিয়েস্তারা।

প্রতি মৌসুমেই বেশ কয়েকবার এল ক্লাসিকো দেখার সুযোগ পায় গোটা দুনিয়ার ফুটবলপ্রেমীরা। তবে প্রীতি এল ক্লাসিকো? দীর্ঘ ২৫ বছর পর। হ্যাঁ, ১৯৯১ সালের সেপ্টেম্বরের পর এই প্রথম রিয়াল মাদ্রিদ ও বার্সেলোনার প্রীতি ম্যাচ দেখার সুযোগ পেল ফুটবলপ্রেমীরা। দুই যুগেরও বেশি সময় আগের সেই ম্যাচটি অবশ্য ড্র হয়েছিল ১-১ গোলে। এবার অবশ্য হেরে গেছে জিনেদিন জিদানের রিয়াল।