ভারতে বাড়ছে চিনির দাম, তিন সপ্তাহের মধ্যে সর্বোচ্চ


sugar-price-encresing-532810132

চিনি উৎপাদনকারী শীর্ষদেশ ব্রাজিলে বৈরী আবহাওয়ার কারণে উৎপাদন হ্রাস হওয়ার জেরে মুল্যাবৃদ্ধির খবরে ভারতের বাজারে ঊর্ধ্বমুখী হয়েছে চিনির দাম। একইসাথে গত তিন সপ্তাহের মধ্যে চিনির দাম সর্বোচ্চ অবস্থানে পৌঁছে গেছে বলে জানা গেছে বিজনেস স্ট্যান্ডার্ডে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ব্রাজিলে তুষারপাতের কারণে চলতি মৌসুমে আখ উৎপাদন ব্যাহত হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। এর ফলে চিনি উৎপাদনও কমবে। এ সংবাদের জের দরে আন্তর্জাতিক বাজারে পণ্যটির দাম বেড়েছে। শিকাগো মার্কেন্টাইল এক্সচেঞ্জে বৃহস্পতিবার ভবিষ্যতে সরবরাহের চুক্তিতে চিনির দাম সাত সপ্তাহের মধ্যে সর্বোচ্চে পৌঁছেছে। এর প্রভাব পড়েছে ভারতের বাজারেও। খাদ্যপণ্যটির দাম বেড়ে তিন সপ্তাহের সর্বোচ্চ অবস্থানে পৌঁছে গেছে।

প্রতিবেদনে আরও বলাহয়, ভারতের বাজারে সবশেষ ২৯ জুন (এম-৩০ মানের) প্রতি কুইন্টাল চিনি বিক্রি হয়েছিল ৩ হাজার ৯১৪ রুপিতে। ন্যাশনাল কমোডিটি অ্যান্ড ডেরিভেটিভস এক্সচেঞ্জে (এনসিডিইএক্স) বৃহস্পতিবার অক্টোবরে সরবরাহের চুক্তিতে প্রতি কুইন্টাল চিনি (এম-৩০ মানের) বিক্রি হয় ৪ হাজার ৫০ রুপিতে, যা তিন সপ্তাহের মধ্যে সর্বোচ্চ।

ভারতে চিনি আমদানির ক্ষেত্রে বর্তমানে ৪০ শতাংশ হারে শুল্ক দিতে হয় আমদানিকারকদের। এ হার বৃদ্ধি করে ৬০ শতাংশ করার পরিকল্পনা নিয়েছে ভারত সরকার। মূলত পণ্যটির অধিক আমদানিপ্রবণতা ঠেকানো ও অভ্যন্তরীণ দাম ধরে রাখার স্বার্থে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হচ্ছে। আদমানি শুল্ক বাড়লে পণ্যটি আমদানিতে ব্যয় বাড়বে। ফলে ব্যবসায়ীরা বাজারে চিনির দাম বাড়িয়ে বাড়তি ব্যয়ভার লাঘবের চেষ্টা করবেন বলে ধারণা করছেন বিশ্লেষকরা। তাই আরো কিছুদিন পণ্যটির দামে ঊর্ধ্বমুখিতা বজায় থাকার সম্ভাবনা রয়েছে।

ভারতের চিনি উৎপাদন খাতে আগামী মৌসুম (২০১৭-১৮) শুরু হচ্ছে অক্টোবর থেকে। আগামী মৌসুমে দেশটিতে পণ্যটির উৎপাদন চলতি মৌসুমের তুলনায় ২৫ শতাংশ বাড়বে বলে মনে করছে ইন্ডিয়ান সুগার মিলস অ্যাসোসিয়েশন (আইএসএমএ)। সংস্থাটির পূর্বাভাস অনুযায়ী, ২০১৭-১৮ মৌসুমে দেশটিতে ২ কোটি ৫১ লাখ টন চিনি উৎপাদন হতে পারে। চলতি মৌসুম শেষে ভারতে ২ কোটি ৩ লাখ টন চিনি উৎপাদন হতে পারে বলে ধারণা করছে আইএসএমএ।

অন্যদিকে ভারতের ক্রেডিট রেটিং এজেন্সি আইসিআরএর তথ্য অনুযায়ী, ২০১৭-১৮ মৌসুমে দেশটিতে চিনি উৎপাদন হতে পারে ২ কোটি ৩৫ লাখ থেকে ২ কোটি ৪৫ লাখ টনের মধ্যে, যা আগের মৌসুমের তুলনায় ১৬-২০ শতাংশ বেশি।