আল-আকসা মসজিদ প্রাঙ্গণে ক্যামেরা বসাল ইসরায়েল, পশ্চিম তীরে আরও দুই ফিলিস্তিনি নিহত


al-asqa-23-7-2017-1-269850320

জেরুজালেমের ওল্ড সিটিতে অবস্থিত আল-আকসা মসজিদ প্রাঙ্গণে প্রবেশের মুখে ক্যামেরা বসিয়েছে ইসরায়েল। মুসলমানদের কাছে হারাম আল-শরিফ এবং ইহুদিদের কাছে টেম্পেল মাউন্ট নামে পরিচিত পবিত্র এই জায়গাটিতে নতুন নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে উত্তেজনা ও বিক্ষোভের মধ্যেই সেখানে সিসিটিভি ক্যামেরা বসানো হলো।

এর আগে এক হামলায় দু’জন ইসরায়েলি পুলিশ নিহত হওয়ার পর ইসরায়েল সেখানে মেটাল ডিটেক্টর বসায় এবং ৫০ বছরের কম বয়ষ্কদের সেখানে যাওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। যার তীব্র প্রতিবাদ করে আসছে ফিলিস্তিনি মুসলিমরা।

ইসরায়েলি সেনা কর্মকর্তা মেজর জেনারেল ইয়োয়াভ মোরদেচাই বলেন, ‘আমরা আশা করি, চলমান সমস্যার প্রেক্ষাপটে নিরাপত্তা বিধানের জন্য জর্ডান এবং অন্যান্য আরব জাতিগুলো ভিন্ন কোনো সমাধান নিয়ে আসবে। যেকোনো সমাধান সে হোক ইলেকট্রনিক, সাইবার কিংবা আধুনিক প্রযুক্তিগত অন্য কোনো কিছু। ইসরায়েল সমাধানের জন্য প্রস্তুত। আমাদের নিরাপত্তা সমাধান দরকার, ধর্মীয় কিংবা রাজনৈতিক সমাধান নয়।’

এ বিষয়ে বিবিসির মধ্যপ্রাচ্য বিষয়ক সম্পাদক অ্যালান জনস্টন বলছেন, এটা ইসরায়েলের পক্ষ থেকে সুর নরম করবার একটি লক্ষণ এবং চলমান ইস্যুতে এই প্রথম তাদের নরম হতে দেখা গেল। ইসরায়েলি সংবাদমাধ্যমেও আভাস দেয়া হচ্ছে এর ফলে হয়তো মেটাল ডিটেক্টর সরিয়ে নেয়া সম্ভব হতে পারে।

তবে ক্যামেরা বসানোর ব্যাপারে ফিলিস্তিনিদের কোনো আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া এখনও পাওয়া যায়নি।

এদিকে পবিত্র আল-আকসা মসজিদে প্রবেশে ইসরায়েলের বিধিনিষেধকে কেন্দ্র করে বিক্ষোভে আহত দুই ফিলিস্তিনির মৃত্যু হয়েছে। পশ্চিম তীরে ইসরায়েলি নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে পৃথক সংঘর্ষের ঘটনায় ওই দুই তরুণ আহত হয়েছিলেন। এই নিয়ে গত তিন দিনে মোট পাঁচজন ফিলিস্তিনি নিহত হলেন।

ফিলিস্তিনের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানায়, পূর্ব জেরুজালেমের আল আইজারিয়াতে ইসরায়েলি সেনাদের গুলিতে আহত ওদে নাওয়াজা (১৭) মারা গেছে। এ ছাড়া পশ্চিম তীরের আবু দিস গ্রামে নিহত হন ১৮ বছর বয়সী এক তরুণ।

সংঘর্ষের ঘটনায় দুই পুলিশসহ মোট পাঁচ ইসরায়েলি নিহত হন। সব মিলিয়ে এ পর্যন্ত ১০ জনের প্রাণ গেল। এদিকে মসজিদ প্রাঙ্গণে ফিলিস্তিনি হত্যার প্রতিবাদে ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ ইসরায়েলের সাথে সব ধরনের যোগাযোগ বন্ধ করে দিয়েছে।

অপরদিকে ফিলিস্তিন-ইসরায়েল পরিস্থিতি নিয়ে ২৪ জুন সোমবার জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে একটি জরুরি বৈঠক হবার কথা রয়েছে।