অপ্রতিরোধ্য চিলিকে কাঁদিয়ে ফিফা কনফেডারেশন্স কাপের চ্যাম্পিয়ন জার্মানি


একদিকে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন জার্মানি। অন্যদিকে কোপা আমেরিকায় টানা দুইবারের চ্যাম্পিয়ন চিলি। রোববার ফিফা কনফেডারেশন্স কাপের ফাইনালে বিশ্ব ফুটবলের অন্যতম শক্তিশালী এই দুই দলই একে অন্যের মুখোমুখি হয়েছিল। তবে রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গে শেষের হাসি হেসেছে জার্মানিই। বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা এদিন ১-০ গোলে হারায় চিলিকে। সেইসঙ্গে প্রথমবারের মতো ফিফা কনফেডারেশন্স কাপের শিরোপা জয়ের স্বাদ পায় জোয়াকিম লোর শিষ্যরা।

অভিজ্ঞ ফুটবলারদের নিয়েই গড়া চিলি ফুটবল দল। সেই তুলনায় তরুণ খেলোয়াড়দের নিয়েই মিশন শুরু করেন জার্মানির অভিজ্ঞ কোচ জোয়াকিম লো। টুর্নামেন্টের শুরু থেকেই দুর্দান্ত খেলে আসা জার্মানি ফাইনালেও নিজেদের মেলে ধরে দারুণভাবে।

ম্যাচ শুরুর ২০ মিনিটেই এগিয়ে যায় বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। টুর্নামেন্টের অন্যতম সেরা গোলরক্ষক ক্লাউদিও ব্রাভোকে বোকা বানিয়ে দারুণ এক গোল করে জার্মান সমর্থকদের উচ্ছ্বাসের জোয়ারে ভাসান লার্স স্টিন্ডল।

তবে পিছিয়ে পড়ে ম্যাচে ফিরতে মরিয়া হয়ে উঠে চিলি। একের পর এক আক্রমণও করেন সানচেজ-ভিদালরা। কিন্তু জবাব দিয়ে পাল্টা আক্রমণ করতে দেরি করেনি জার্মানির তরুণ দলটিও। দুই দলেরই চলে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই। তবে বিরতিতে যাওয়ার আগেও গোল ব্যবধান দ্বিগুন করার সুযোগ পেয়েছিল মুলার-ওজিলদের উত্তরসূরীরা। কিন্তু তা কাজে লাগাতে পারেনি জোয়াকিম লোর দল। এর ফলে ১-০ গোলে এগিয়ে থেকেই বিরতিতে যায় জার্মানি। অথচ প্রথমার্ধে বল দখলের লড়াইয়ে কিন্তু এগিয়ে ছিল চিলিই। তাদের অংশে বল ছিল ৬৩ ভাগ। অন্যদিকে জার্মানির দখলে ছিল মাত্র ৩৭ ভাগ।

দ্বিতীয়ার্ধেও লড়াই চলে হাড্ডাহাড্ডি। ৫৮ মিনিটে তো কিমিচ আর ভিদালের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়। তবে তা খুব বেশিদূর এগুতে দেননি রেফারি। দুজনকেই হলুদ কার্ড দেখিয়ে ম্যাচ শুরু করেন আবার। ম্যাচের ৭৯ মিনিটে দুর্দান্ত এক সেভ করেন জার্মান গোলরক্ষক। অসাধারণ কিছু সেভ করেন ক্লাউদিও ব্রাভোও। এর ফলে ম্যাচের বাকী সময়টাতে আর কোন দলই গোলের দেখা পায়নি। যে কারণে ১-০ গোলের জয় নিয়েই শিরোপা-উচ্ছ্বাসে ভাসে বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা।

২০১৪ সালে লাম-মুলার-ওজিলদের মতো অভিজ্ঞদের নিয়ে ব্রাজিল বিশ্বকাপের চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল জার্মানি। এবার সেই দলকে না নিয়ে তুলনামূলক তরুণ খেলোয়াড়দের নিয়েই ফিফা কনফেডারেশন্স কাপের শিরোপা জিতলেন জোয়াকিম লো। এর পেছনের রহস্যটাও অবশ্য অনেকের জানা। এই রাশিয়াতেই যে আগামী বছর অনুষ্ঠিত হবে ফিফা বিশ্বকাপ! দুইবারের কোপা আমেরিকার চ্যাম্পিয়নদের হারিয়ে সেই মহড়াটা অবশ্য দারুণভাবেই সেরে নিলেন জোয়াকিম লো।

চিলি-জার্মানির এই ম্যাচ দেখতে অনেকের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনার সাবেক দুই কিংবদন্তি ফুটবলার দিয়াগো ম্যারাডোনা এবং রোনালদোও।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*