আমাদের সোনা বৈধ: আপন জুয়েলার্সের মালিক


Dilder

বনানীর হোটেলে দুই তরুণী ধর্ষণের ঘটনায় জড়িত সাফাত আহমেদের বাবা ও আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদ বলেছেন, আপন জুয়েলার্সে কোনো অবৈধ সোনা বা হীরা নেই।

১৭ মে বুধবার শুল্ক গোয়েন্দা কার্যালয়ে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে শুল্ক গোয়েন্দা কার্যালয় থেকে বের হওয়ার সময় সাংবাদিকদের এ কথা বলেন তিনি।

দিলদার আহমেদ বলেন, ৪০ বছর ধরে সততার সঙ্গে ব্যবসা করে আসছি। কোনো অবৈধ জিনিস (স্বর্ণ-হীরা) আমাদের দোকানে নাই। আপন জুয়েলার্স সিলগালা হলে দেশের সব স্বর্ণের দোকানই বন্ধ হয়ে যাবে।

তিনি আরও বলেন, শুল্ক গোয়েন্দার অধিকার রয়েছে আমাদের দোকান সার্চ করার। তারা আমাদের স্বর্ণ ও ডায়মন্ড জব্দ করেছে। আমরা পেপার্স শো করব। সময় নিয়েছি। একই সঙ্গে আইনজীবীদের সঙ্গে কথা বলে এ বিষয়ে আমরা পরবর্তী ব্যবস্থা নেব।

প্রসঙ্গত, বনানীর রেইন ট্রি হোটেলে দুই তরুণী ধর্ষণ মামলায় প্রধান অভিযুক্ত আপন জুয়েলার্সের অন্যতম মালিক দিলদার আহমেদের ছেলে সাফাত আহমেদ। গত ২৮ দুই ছাত্রী ধর্ষণের শিকার হয়েছেন বলে ৬ মে বনানী থানায় মামলা হয়। আদালতে দেওয়া জবানবন্দিতে দুই ছাত্রী জানান, গত ২৮ মার্চ বনানীর দ্য রেইনট্রি হোটেলে জন্মদিনের অনুষ্ঠানে দাওয়াত দিয়ে তাদের নেওয়া হয়। সেখানে ধর্ষণের শিকার হন তারা।