শ্রমিকদের অবদানে বাংলাদেশ বিশ্বে উন্নয়নের মডেল: ওবায়দুল কাদের


maxresdefault-7

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বাংলাদেশ বিশ্বের দরবারে উন্নয়নের মডেল হিসাবে পরিচিত পাচ্ছে। এতে শ্রমিকদের অবদান বেশি, তাদের শ্রম ও ঘামের বিনিময়ে বাংলাদেশের উন্নয়ন হচ্ছে এবং দেশের অর্থনীতি শক্তিশালী হচ্ছে।

১ মে সোমবার সকালে বঙ্গবন্ধু এভিনিউস্থ আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে এক সমাবেশে এসব কথা বলেন তিনি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আট ঘণ্টা শ্রমের দাবিতে এ মে দিবস। এ কারণে শ্রমিকরা রক্ত দিয়েছে। আজকে যারা মালিক তাদের অধীনে যারা শ্রমিক আছে, তাদের কর্মঘণ্টা যেন আট ঘণ্টায় বেধে দেওয়া হয়। যদি তা না হয়, এ মে দিবস করে লাভ কী? আমাদের সরকার শ্রমিকদের উন্নয়নে সবসময় কাজ করবে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিভিন্ন বাসা-বাড়ি, কল-কারখানায় দেখা যায়, ছোট ছোট শিশুরা কাজ করছে, যেটা অমানবিক। অতিরিক্ত কাজ করাতে গিয়ে এ শিশুদের উপর নির্যাতন করা হয়। এই শিশুশ্রম আমাদের দেশে বন্ধ করতে হবে। কলকারখানাগুলোতে শিশুশ্রম বন্ধ করতে হবে।

পরিবহন শ্রমিকদের কথা উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, চালক তখনই বেপরোয়া হয়, যখন সে অতিরিক্ত সময় ড্রাইভিং করে। দূরপাল্লার একটি পরিবহনে একজন চালক বিরতি ছাড়া তিন-চারটা ট্রিপ দিয়ে থাকে। ফলে মানসিক-শারীরিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলে। এটা কমাতে চালকদের শ্রমঘণ্টা কমিয়ে দিতে হবে।

আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, আমরা ক্ষমতায় এলে দেশের নজিরবিহীন উন্নয়ন হয়, আর বিএনপি ক্ষমতায় এসে হাওয়া ভবন, খাওয়া ভবনের মাধ্যমে নজিরবিহীন লুটপাট করে। আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে বিএনপি হাওয়া ভবনের মতো আরেকটি ‘খোয়াব ভবনের’ খোয়াব দেখছে।

তিনি আরও বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে কলকারখানা, গামের্ন্টস শিল্প বৃদ্ধি পায়। শ্রমিকদের কর্মসংস্থান বাড়ে, বেতন বৃদ্ধি পায়, সুযোগ-সুবিধা এবং নিরাপত্তা বাড়ে। আর বিএনপি ক্ষমতায় এসে কলকারখানা বন্ধ করে মেহনতি মানুষকে বেকার করে। শ্রমিকদের পেটে লাথি মারে, শ্রমজীবী মানুষের রক্ত ঝরে এদেশের মাটিতে।

সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন জাতীয় শ্রমিক লীগের সভাপতি শুক্কুর মাহমুদ। আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ, শ্রম ও জনশক্তি বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজ, কার্যকরী সভাপতি ফজলুল হক মন্টু প্রমুখ।