বাংলাদেশে ‘ফাস্ট অ্যান্ড ফিউরিয়াস ৮’


 

১৪ এপ্রিল আন্তর্জাতিকভাবে মুক্তি পাবে হলিউডের জনপ্রিয় ছবি ‘ফাস্ট অ্যান্ড ফিউরিয়াস’-এর অষ্টম সিক্যুয়েল ‘ফাস্ট অ্যান্ড ফিউরিয়াস ৮’। তবে বাংলাদেশের দর্শকদের জন্য চমকপ্রদ খবর হলো, একদিন আগেই ছবিটি মুক্তি পাবে স্টার সিনেপ্লেক্সে। অর্থাৎ ১৩ এপ্রিল থেকে ছবিটি দেখতে পারবেন বাংলাদেশের দর্শকরা।

‘ফাস্ট অ্যান্ড ফিউরিয়াস ৮’ পরিচালনা করেছেন এফ গ্যারি গ্রে। ছবিতে আগের মতোই থাকছেন ভিন ডিজেল, ডোয়াইন জনসন, জ্যাসন স্ট্যাথাম। নতুন করে এবার তাদের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন শার্লিজ থেরন। মূল খলচরিত্রে অভিনয় করেছেন অস্কারজয়ী এ অভিনেত্রী। ‘ফাস্ট অ্যান্ড ফিউরিয়াস’ সিরিজে খলচরিত্রই থাকে মূল আকর্ষণ।

সবশেষ ছবিতে খলনায়কের ভূমিকায় অভিনয় করেন জেসন স্ট্যাথাম। এবারই প্রথম খলচরিত্রে এসেছেন শার্লিজ থেরন। বার্লিনে ছবির প্রিমিয়ারে তিনি বলেন, খল চরিত্রে অভিনয় করাটা তার জন্য বেশ চ্যালেঞ্জিং ছিল। অভিনয় জীবনের ১৬ বছরের অভিজ্ঞতাকে ভেঙে নতুন করে গড়তে হয়েছে নিজেকে। আগের সিরিজগুলোর চেয়ে আরো বেশি স্ট্যান্ট দৃশ্যে ভরপুর এবারের পর্ব।

‘ফাস্ট অ্যান্ড ফিউরিয়াস’ মানেই জমজমাট গতির লড়াই। শত্রুদের নিধন আর বন্ধুদের বাঁচানোর লড়াই ঘিরেই জনপ্রিয় এ ফ্র্যাঞ্চাইজির সিনেমাগুলোর গল্প আবর্তিত হয়। এবারের ছবিটিও এর ব্যতিক্রম নয়। তবে এ  পর্বের কাহিনিতে রয়েছে কিছু নতুন চমক। এক সাক্ষাৎকারে ভিন ডিজেল বলেন, “কাহিনিতে পরিবর্তন আনতেই অষ্টম কিস্তিতে আনা হয়েছে নতুন কিছু চমক। এবারের সিনেমায় বন্ধু হয়ে যাবে শত্রু আর নায়ক হয়ে যাবে খলনায়ক! একঘেয়ে গল্পে নতুনত্ব আনতেই এবারে এ কাজটি করা হয়েছে। আশা করি দর্শকের তা ভালো লাগবে।’ ডিজেল আরও বলেন, ‘যদি দর্শকের এ ছবিটি ভালো লাগে তবে এই গল্প নিয়েই আরও দুটো কিস্তি নির্মাণের কথা ভাবা হবে।’

‘দ্য ফাস্ট অ্যান্ড দ্য ফিউরিয়াস’ নামে সিরিজের যাত্রা শুরু ২০০১ সালে। আর অষ্টম পর্ব নির্মাণের  ঘোষণাটি আসে মার্চ ২০১৫-তে। জিমি কিমেল লাইভে উপস্থিত হয়ে ডিজেল এ ঘোষণাটি দেন। ফিউরিয়াস ৮ নির্মাণের প্রস্তুতি শুরু হয় ফিউরিয়াস-৭-এর রিলিজের পরপরই, যখন প্রযোজক নিয়েল এইচ মর্টিজ ডিজেল এবং মরগানকে স্বাক্ষর করান।

লোকেশন হিসেবে বেছে নেয়া হয় মেভাটন, হাভানা, আটলান্টা, ক্লিভলেন্ড এবং নিউইয়র্ক সিটিকে। এ নিয়ে ষষ্ঠবারের মতো এই ছবির স্ক্রিপ্ট লিখলেন ক্রিস মরগান আর প্রযোজক হিসেবে নিয়েল এইচ মর্টিজের ফিরে আসার ছবি। মর্টিজ বলেন, এটি হতে যাচ্ছে আগের যে কোনো পর্বের চেয়ে অনেক বেশি রোমাঞ্চকর। এ ছবিতে থাকছে না পল ওয়াকার অভিনীত ব্রায়ান চরিত্রটি। ২০১৩-এর ৩০ নভেম্বর এক গাড়ি দুর্ঘটনায় মারা যান ওয়াকার। যদিও বলা হয়েছিল ওয়াকারের ছোট ভাই কডি ওয়াকার অভিনয় করবেন তার বড় ভাইয়ের চরিত্রে। কিন্তু পরে জানানো হয় তা আর হয়ে উঠছে না। জানুয়ারি ২০১৬- তে ইউনিভার্সেল ফিল্মস জানায়, তারা মার্কিন এবং কিউবান সরকারের কাছ থেকে কিউবায় দৃশ্যায়নের অনুমতি পেয়েছে। এর পরেই ১৪ এপ্রিল থেকে শুরু হয় ছবির দৃশ্যধারণের কাজ। ছবির মিউজিক কম্পোজিশনে আছেন ব্রায়ান টাইলার যিনি তৃতীয়, চতুর্থ, পঞ্চম এবং সপ্তম পর্বেও সঙ্গীতের দায়িত্বে ছিলেন।

আটলান্টিক রেকর্ড সাউন্ডট্রেক অ্যালবামটি মুক্তি দিতে যাচ্ছে ছবিটির মুক্তির দিনই। ‘ফাস্ট অ্যান্ড ফিউরিয়াস’ সিরিজের সবগুলো ছবিই দারুণ জনপ্রিয়তা পেয়েছে এবং বক্স অফিস মাত করেছে। এবারের ছবিটি সাফল্যের পথে আরও এক ধাপ এগিয়ে যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*