‘রিভেঞ্জ পর্ন’ বন্ধে পদক্ষেপ নিচ্ছে ফেসবুক


 

 

‘রিভেঞ্জ পর্ন’ বন্ধের বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়ার কথা জানিয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই নারীরাই এ ধরণের ঘটনার শিকার হন। বুধবার এক ফেসবুক পোস্টে একথা জানিয়েছেন ফেসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ।

প্রতিশোধপরায়ন হয়ে কেউ যদি কারো ব্যাক্তিগত বা যৌনতাপূর্ণ ছবি বা ভিডিও শেয়ার করাকে ‘রিভেঞ্জ পর্ন’ বলা হয়ে থাকে।

মার্ক জাকারবার্গ ফেসবুক পোস্টে বলেছেন, ফেসবুকের কৃত্রিম বুদ্ধিমত্রা ও ছবি সনাক্তকরণ সফটওয়্যার যদি বুঝতে পারে, কোনো অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ছবি বা ভিডিও অনুমতি ছাড়া ও কেবলমাত্র প্রতিহিংসার কারণে পোস্ট করা হয়েছে, তবে তা শেয়ার বা আবার পোস্ট করার অপশন নষ্ট করে দেওয়া হবে। প্ল্যাটফর্ম থেকে ওই পোস্ট সরিয়েও ফেলা হবে। এখন থেকে রিভেঞ্জ পর্নের বিরুদ্ধে এই প্রতিরোধ ফেসবুক, ম্যাসেঞ্জার ও ইনস্টাগ্রামে করা হবে।
এছাড়া ঘটনার শিকার ব্যক্তি নিজেও ওই উদ্দেশমূলক ছবি বা ভিডিওর পাশে থাকা ‘আমার নগ্ন ছবি’ অপশনে ক্লিক করে এর বিরুদ্ধে রিপোর্ট করতে পারবে। তখন ফেসবুক ছবিটি সরিয়ে নেবে।
‘রিভেঞ্জ পর্নো’ শেয়ার করেন এমন ব্যবহারকারীরা তাদের অ্যাকাউন্ট বিকল অবস্থায়ও দেখতে পারেন বলেও প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে।
এর আগে ২০১৫ সালে এ ধরণের উদ্যোগের কথা প্রথম জানায় ফেসবুক।
ফেসবুকের এ উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছে যুক্তরাজ্যের রিভেঞ্জ পর্ন হেল্পলাইন। এর প্রতিষ্ঠাতা লরা হিগিংস বলেন, এই পদক্ষেপকে একটা বড় অগ্রগতি বলা যেতে পারে। সঙ্গীর সঙ্গে বিচ্ছেদ হয়ে যাওয়ার পর সাবেক সেই সঙ্গীর আপত্তিকর ছবি বা ভিডিও অনলাইনে ছড়িয়ে দেওয়ার প্রবণতা বা ‘রিভেঞ্জ পর্নের’ প্রকোপ দিন দিন বাড়ছে। দেখা যায়, অতি আপন মানুষের ওপর প্রতিশোধ নিতে নিজেদের অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ছবিই পোস্ট করা হয় ফেসবুকে।
এর আগে শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে এমন ব্যবস্থা নিয়েছিল সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমটি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*