ইমার্জিং কাপের শিরোপা শ্রীলঙ্কার হাতে


 

Image result for ইমার্জিং কাপের শিরোপা

 

ইমার্জিং কাপের প্রথম আসরে শিরোপা জয়ের জন্য লক্ষ্যটা সহজ ছিলো। পাকিস্তানের দেওয়া ১৩৪ রানের লক্ষ্য তাড়া করে ইমার্জিং কাপের প্রথম আসরে শিরোপা জেতার গৌরব অর্জন করলো শ্রীলঙ্কা। সোমবারের ফাইনালে পাকিস্তানকে পাঁচ উইকেটে হারিয়েছে লঙ্কানরা।

এদিন চট্টগ্রামে জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ফাইনালে টস জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে লঙ্কান বোলারদের বোলিং তোপে দাঁড়াতেই পারেনি পাকিস্তান। ৪২.১ ওভারে মাত্র ১৩৩ রান তুলতেই গুটিয়ে যায় তারা। জবাবে পাঁচ উইকেট এবং ১৫৭ বল হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় লঙ্কানরা।

১৩৪ রান তাড়া করতে নেমে শুরুটা খুব বেশি ভালো হয়নি লঙ্কানদের। নিজেদের দিনেও দলকে শুভসূচনা এনে দিতে ব্যর্থ হয় লঙ্কানদের টপ অর্ডার। ওয়ানিদু হাসারাঙ্গা ব্যক্তিগত ১৭ রান করে ফিরে গেলে এক এক করে দ্রুত বিদায় নেন শেহান জয়সুরিয়া (৭), চারিথ আশালঙ্কা (৪) এবং অ্যাঞ্জেলো পেরারা (৮)।

স্কোর কার্ডে ৮৯ রান যোগ করতে দলের চার ব্যাটসম্যান ফিরে গেলেও উইকেটের একপ্রান্ত আগলে টিকে থাকেন ওপেনার সাদিরা সামারা বিক্রমা। এদিন হাফ সেঞ্চুরি থেকে মাত্র পাঁচ রান দূরে থেকে আউট হন তিনি। ৪২ বলে আটটি চারে দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪৫ রানের এক কার্যকরী ইনিংস খেলেছেন এই ডানহাতি।

৪৫ রান করে এই উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান ফিরে গেলেও আভিসকা ফার্নান্দো ও কিথুরুয়ান ভিথানাগে দলকে শিরোপা জিতিয়ে মাঠ ছাড়েন। আভিসকা ফার্নান্দো দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২২ করে অপরাজিত থাকেন এবং ভিথানাগের ব্যাট থেকে আসে অপরাজিত ২০ রান।

পাকিস্তানের পক্ষে সর্বোচ্চ দু’টি উইকেট নিয়েছেন সামিন গুল। এছাড়া গোলাম মোদাসসের, জাফর গহর ও উসামা মীর নিয়েছেন একটি করে উইকেট।

এর আগে বাঁ-হাতি স্পিনার শেহান জয়সুরিয়া ও লেগস্পিনার ওয়ানিদু হাসারাঙ্গার ঘূর্ণিতে ১৩৩ রানের বেশি করতে পারেনি পাকিস্তান। শুরু থেকেই লঙ্কানদের বোলিং তোপে পড়ে দলীয় ৪২ রান তুলতেই চার উইকেট হারায় তারা। এদিন দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ২৬ রানের করেন অধিনায়ক মোহাম্মদ রিজওয়ান ও উসামা মির। এছাড়া হাম্মাদ আজম ২৫ ও খুশদিল শাহ ২০ রানের ইনিংস খেলেন। পাকিস্তানের বিপক্ষে জয়সুয়রিয়া একাই নেন তিন উইকেট। হাসারাঙ্গা পান আরও দুই উইকেট।