৯০ হাজার কোটি ডলারের প্রণোদনাকে অপব্যয় বলছেন ট্রাম্প


 

গত কয়েক মাসের ধরে আলোচনার পর অবশেষে সোমবার রাতে করোনা মহামারির জন্য প্রায় ৯০ হাজার কোটি ডলারের প্রণোদনা প্যাকেজে সম্মত হন মার্কিন আইনপ্রণেতারা। কিন্তু মার্কিন কংগ্রেসে পাশ হওয়া এই কোভিড রিলিফ বিলকে ‘অপব্যয়’ বলে আখ্যায়িত করেছেন বিদায়ী মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। বিলটি কার্যকর হওয়ার জন্য ট্রাম্পের স্বাক্ষরের প্রয়োজন।

মঙ্গলবার রাতে এক টুইট বার্তায় এই বিলকে ট্রাম্প ‘অসম্মানজনক’ ও ‘অপব্যয়’ বলে আখ্যায়িত করলেও প্রত্যেক মার্কিনির জন্য মাথা পিছু বরাদ্দের হার বাড়ানোর জন্য তিনি কংগ্রেসের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, বিলের নাম দেয়া হয়েছে কোভিড রিলিফ বিল, কিন্তু কোভিডের সঙ্গে এর প্রায় কোনো সম্পর্কই নেই। এই ৯০ হাজার কোটি ডলারের প্রণোদনা প্যাকেজে প্রত্যেক মার্কিনির জন্য ৬শ ডলার করে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

কিন্তু মঙ্গলবার রাতে ট্রাম্প তার টুইটে ওই বরাদ্দ জনপ্রতি দুই হাজার ডলার করার আহ্বান জানিয়েছেন। দেশটির আইনপ্রনেতাদের প্রতি তিনি অপ্রয়োজনীয় ও অযথা ব্যয় কমিয়ে মাথাপিছু বরাদ্দ বাড়াতে বলেছেন।

কংগ্রেসে পাস হওয়া বহুল আলোচিত এই বিলটিতে ট্রাম্প স্বাক্ষর করলে তা আইনে পরিণত হওয়ার কথা। গত কয়েক মাস ধরেই এই বিলটি নিয়ে বহু আলোচনা-সমালোচনা হয়েছে দেশটিতে।

বিলটিতে অন্য দেশের জন্য আর্থিক সহায়তার সমালোচনা করে তিনি বলেন যে, ওই অর্থ দুস্থ মার্কিনিদের জন্য খরচ করা উচিত। সামনের মাসে দায়িত্ব হস্তান্তর করতে যাওয়া এই প্রেসিডেন্ট বলেন, কংগ্রেস অন্য রাষ্ট্র, লবিস্ট আর বিশেষ স্বার্থের জন্য অনেক টাকা খুঁজে পায়। কিন্তু দেশের মানুষের জন্য সামান্যই খরচ করে।

এটা তাদের (মার্কিন জনগণ) দোষ না, এটা চীনের দোষ। তিনি বলেন, আমি কংগ্রেসকে বলেছি এই বিল সংস্কার করতে এবং হাস্যকর এ বরাদ্দ জনপ্রতি ৬শ ডলার থেকে বাড়িয়ে দুই হাজার ডলার বা দম্পতিদের জন্য চার হাজার ডলার করা হোক।

সোমবার কংগ্রেসের নেতৃবৃন্দ সাড়ে পাঁচ হাজার পৃষ্ঠারও বেশি বড় এই বিল উপস্থাপন করেন এবং কয়েক ঘণ্টা পর এর ভোটাভুটি হয়।কয়েকজন আইনপ্রনেতা অভিযোগ করেন যে, মতামত দেয়ার জন্য তারা বিলটি পুরো পড়েও উঠতে পারেননি।

তা সত্ত্বেও বিলটি হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভে ৩৫৯-৫৩ ভোটে এবং সিনেটে ৯২-৬ ভোটে পাস হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রে এর আগে কোভিড-১৯ এর জন্য যেসব আর্থিক প্রণোদনার ব্যবস্থা ছিল সেগুলোর বেশিরভাগের মেয়াদ এ মাসেই শেষ হওয়ার কথা।

রিলিফ প্যাকেজে নানা ধরণের বিধান রাখা হয়েছে। যার ফলে মহামারির কারণে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত লাখ লাখ মার্কিন নাগরিক উপকৃত হবেন বলে আশা করা হচ্ছে। এতে এককালীন যে ৬শ ডলার দেয়ার কথা বলা হচ্ছে তা মার্চে দেয়া প্রণোদনার তুলনায় অর্ধেক।

সোমবারের ওই প্যাকেজে ফেডারেল বেকারভাতা সপ্তাহে ৩শ ডলার পর্যন্ত করা হয়েছে, যা ১১ সপ্তাহ পর্যন্ত দেয়া হবে। এছাড়া বাড়ি ভাড়া বাবদ সহায়তা প্যাকেজে ২ হাজার ৫শ কোটি ডলার রাখা রয়েছে। সেই সঙ্গে এ মাসের মধ্যে বাড়িভাড়ার মেয়াদ শেষ হলে কাউকে উচ্ছেদের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে। এর বাইরে হাসপাতালে আকস্মিক আকাশচুম্বী বিলও যাতে না করা হয় তার ওপরও নিষেধাজ্ঞা আনা হয়েছে।