যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনি ব্যবস্থায় ত্রুটি রয়েছে: পুতিন


যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনি ব্যবস্থায় ত্রুটি রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। রবিবার রাশিয়া-১ টেলিভিশনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি এমন মন্তব্য করেন।

পুতিন বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনি ব্যবস্থায় ত্রুটি থাকার কারণে দেশটিতে চলমান সংকট তৈরি হয়েছে।

রুশ প্রেসিডেন্ট বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনি ব্যবস্থায় যে সমস্যা রয়েছে তা এখন মার্কিন কর্মকর্তাদের কাছেও স্পষ্ট।

এই ত্রুটি সংশোধন করার জন্য মার্কিন সরকার ও জনগণের প্রতি আহ্বান জানান পুতিন। তিনি বলেন, এবারের নির্বাচনের বৈধতা নিয়ে যে প্রশ্ন উত্থাপিত হয়েছে তার সমাধান করার দায়িত্ব মার্কিন জনগণের।

এদিকে নবনির্বাচিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে এখনও অভিনন্দন জানায়নি রাশিয়া। পুতিন বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট হিসেবে বাইডেনকে স্বীকৃতি দিতে তিনি এখনও প্রস্তুত নন।

বিবিসি-র যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দফতর বিষয়ক সংবাদদাতা বারবারা প্লেট উশের মনে করেন, বাইডেনের বিজয়ের ফলে শীর্ষ নেতৃত্ব স্তরে রুশ-মার্কিন সম্পর্ক বদলে যাবে। ডোনাল্ড ট্রাম্প রাশিয়ার ওপর অনেক নিষেধাজ্ঞা চাপালেও ভ্লাদিমির পুতিনের ব্যাপারে চুপচাপ থাকতেন। একাধিকবার খোলাখুলি বলেছেন, তিনি পুতিনকে পছন্দ করেন। কিন্তু পুতিন সম্পর্কে বাইডেনের দৃষ্টিভঙ্গি অনেকটাই অন্যরকম হবে।

সিএনএন-কে বাইডেন বলেছেন, রাশিয়াকে তিনি ‘বিরোধী পক্ষ’ বলে মনে করেন। তিনি প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন নির্বাচনে হস্তক্ষেপ এবং আফগানিস্তানে মার্কিন সেনাদের টার্গেট করার জন্য তালেবানকে পয়সা দেওয়ার যে অভিযোগ রাশিয়ার বিরুদ্ধে উঠেছে তার শক্ত জবাব তিনি দেবেন।

বারবারা প্লেট বলেন, ‌‘রাশিয়ার ওপর ট্রাম্পের চাপানো নিষেধাজ্ঞা অব্যাহত তো থাকবেই। সেই সঙ্গে বাইডেন রাশিয়ার নীতিতে আরও স্পষ্ট হবেন।’

প্রশ্ন উঠছে রাশিয়া তাহলে বাইডেনের বিজয়কে কীভাবে দেখছে? মস্কো থেকে বিবিসির স্টিভেন রোজেনবার্গ এ প্রসঙ্গে রুশ একটি সংবাদপত্রের সম্পাদকীয় উদ্ধৃত করেন। এতে বলা হয়েছে, ‘ট্রাম্পের আমলে আমেরিকা-রাশিয়া সম্পর্ক সাগরের তলে গিয়ে ঠেকেছে। আর বাইডেন হলেন ড্রেজারের মতো যিনি সাগরের তল খুঁড়ে ওই সম্পর্ক আরও নিচে নিয়ে যাবেন।’

অনেক রুশ বিশ্লেষক বলছেন একটি ইতিবাচক দিক হলো, বাইডেনকে বোঝা সহজতর হবে। সে কারণে নিরস্ত্রীকরণ চুক্তির মতো ইস্যুতে আপস-মীমাংসা করাটা সহজ হবে। মস্কো হয়তো চেষ্টা করবে ট্রাম্প জামানা পেছনে রেখে হোয়াইট হাউজের সাথে একটি কাজের সম্পর্ক তৈরি করতে। তবে তাতে সাফল্যের কোনও নিশ্চয়তা নেই।

স্বভাবতই বাইডেনের বিজয়ে মস্কো একবারেই খুশি নয়। বরং বাইডেনকে একজন বার্ধক্যগ্রস্ত ব্যক্তি হিসেবে আখ্যায়িত করেছে রুশ মিডিয়া। আর নবনির্বাচিত মার্কিন প্রেসিডেন্টকে পুতিনের এখনও অভিনন্দন না জানানোর কারণ হিসেবে রুশ সংবাদমাধ্যমগুলো বলছে, যুক্তরাষ্ট্রে আনুষ্ঠানিকভাবে ভোট গণনার কার্যক্রম এখনও শেষ হয়নি। ফলে বোধগম্য কারণেই এক্ষেত্রে সতর্কতা অবলম্বন করছে ক্রেমলিন।

রবিবার পুতিন জানিয়েছেন, বৈধ ও আইনসম্মতভাবে বিজয় নিশ্চিত হওয়ার পরই কেবল তিনি বাইডেনকে অভিনন্দন জানাতে পারেন। কিংবা প্রতিপক্ষ বাইডেনের জয় মেনে নেওয়া পর্যন্ত তিনি অপেক্ষা করবেন। সূত্র: দ্য হিল, বিবিসি, পার্স টুডে।