যুক্তরাষ্ট্রের জনগণ পারলে এ দেশের জনগণও পারবে : আলাল


 

বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেছেন, এই সরকারকে বাধ্য করতে হবে গণতান্ত্রিক অধিকার ফেরত দেয়ার জন্য। ডোনাল্ড ট্রাম্পকে যদি সে দেশের জনগণ বিদায় করে দিতে পারে গণতান্ত্রিক রায়ের মাধ্যমে, বাংলাদেশের জনগণও পারবে অগণতান্ত্রিক এই সরকারকে বিদায় করতে। যুক্তরাষ্ট্রের এই নির্বাচন আমাদের জন্য একটি শিক্ষা। এই নির্বাচন থেকে শিক্ষা নিয়ে আমরা আমাদের অধিকার আদায় করার জন্য, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করার জন্য- যা যা প্রয়োজন সবকিছু করার প্রস্তুতি আমাদের রয়েছে।

রোববার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ছাত্র-যুব ফ্রন্ট ঢাকা মহানগর আয়োজিত এক মানববন্ধনে তিনি এ মন্তব্য করেন। তিনি আরও অভিযোগ করেন, সংবিধানবিহীন দেশ চালাচ্ছে এই সরকার এবং এই সংবিধানবিহীন দেশ চালানোর কারণেই যা খুশি তাই করার সাহস পাচ্ছে তারা।

উপস্থিত নেতাকর্মী এবং গণমাধ্যমকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনাদের মনে করিয়ে দিতে চাই পাঁচ বছর ধরে বাংলাদেশে কিন্তু কোনো ছাপানো সংবিধান নেই। বাংলাদেশে এখন সংবিধান আছে কি-না এটা একটা বড় প্রশ্ন। কারণ, প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা ষোড়শ সংশোধনীর যে রায় দিয়েছিলেন সেই রায়ের বিরুদ্ধে সরকার আপিল করেছে কিন্তু তার শুনানি এখন পর্যন্ত হয়নি। সেই কারণে সংবিধানের পরিবর্তন আনা যাচ্ছে না, সংবিধান ছাপানো যাচ্ছে না। অর্থাৎ একটা সংবিধানবিহীন দেশ চালাচ্ছে এই সরকার এবং এই সংবিধানবিহীন দেশ চালানোর কারণেই যা খুশি তাই করার সাহস তারা পাচ্ছেন। যে দেশে ছাপানো সংবিধান নেই, যে দেশ সংবিধান অনুযায়ী চলে না, যে দেশে দিনের ভোট রাতে হয়ে গিয়ে সরকার প্রতিষ্ঠিত হয়, সেই দেশে তো এমনটাই হবে।

আলাল বলেন, আজ সারাদেশে ২০০৯ থেকে এখন অব্দি যে কীর্তিকলাপ চলছে এগুলোর মধ্যে সরকারের সরাসরি প্রচ্ছন্ন ইঙ্গিত রয়েছে, যার হাজারো প্রমাণ আমাদের কাছে আছে। যে কথাগুলো আমরা বিভিন্ন সময়ে বলে আসছি সেগুলো আজ বাংলাদেশের মানুষ হারে হারে প্রমাণ পাচ্ছে। সংখ্যালঘুদের পাশাপাশি ধর্মের দিক থেকে যারা সংখ্যাগুরু তাদের বিষয়ে সরকার উদাসীন।

সরকারের উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনাদের বিরুদ্ধে আমাদের কোনো অভিযোগ নেই, কিন্তু মনে কষ্ট আছে, কষ্ট আছে এজন্য আমরা তো এক সময় গান গাইতাম- গ্রামের নওজোয়ান হিন্দু মুসলমান…আগে কী সুন্দর দিন কাটাইতাম। এখন সেই সুন্দর দিনগুলো আর নেই। সেই সুন্দর দিনগুলো আওয়ামী লীগ হজম করে ফেলেছে। সেই সুন্দর দিনগুলো এখন শুধু তাদের জন্য, অন্যদের জন্য নয়।

আয়োজক সংগঠনের আহ্বায়ক সঞ্জয় গুপ্তের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট নিতাই রায় চৌধুরী, সাবেক মন্ত্রী অ্যাডভোকেট গৌতম চক্রবর্তী ও নির্বাহী কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট নিপুণ রায় চৌধুরী বক্তব্য দেন।