মার্কিন নির্বাচনে ভোটের রাতে বিভ্রান্তির আশঙ্কা


বৈশ্বিক মহামারি পরিস্থিতিতে ডাক ভোটের প্রতি প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরূপ মনোভাব ও প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ কয়েকটি অঙ্গরাজ্যে ডাক ভোটের সময়সীমা না বাড়াতে সুপ্রিম কোর্টের সিদ্ধান্তের ফলে ভোটের রাতে বিভ্রান্তি তৈরির আশঙ্কা করা হচ্ছে। মার্কিন সংবাদমাধ্যম দ্য হিল এক প্রতিবেদনে এই আশঙ্কার কথা তুলে ধরেছে।

মঙ্গলবার মার্কিন সুপ্রিম কোর্ট এক রায়ে জানিয়েছে, প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ অঙ্গরাজ্য উইসকনসিনে শুধু ভোটের দিন আসা ব্যালট গ্রহণ করা যাবে। এই রায়ের মধ্য দিয়ে ডেমোক্র্যাটদের ডাক ভোটের মেয়াদ বাড়ানোর অনুরোধ অগ্রাহ্য করেন বিচারপতিরা। এর আগে পেনসিলভানিয়া অঙ্গরাজ্যের জন্য ডাক যোগের ভোট গ্রহণে অতিরিক্ত তিন দিন এবং নর্থ ক্যারোলাইনায় ছয় দিনের মধ্যে আসা ভোট গ্রহণ করা যাবে।

নির্বাচনি বিশেষজ্ঞরা সতর্কতা জানিয়েছে বলছেন, আধুনিক ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি ডাক ভোট হওয়া নির্বাচনে কয়েক কোটি ব্যালট গণনায় সময় লাগবে। চলমান বিধিমালায় দ্রুত গতির চেয়ে সঠিকতার উপর জোর দেওয়া হয়েছে এবং সাম্প্রতিক ইতিহাসে দেখা গেছে এটি নিশ্চিত করতে সময় লাগে।

ক্যালিফোর্নিয়ার সেক্রেটারি অব স্ট্যাট অ্যালেক্স পাডিলা বলেন, দ্রুত পাওয়ার চেয়ে সঠিক হওয়া চাই আমরা। আমাদের উচিত হবে না ভোটের রাতের সঙ্গে ফলাফলের রাতকে মিলিয়ে ফেলা।

ভোটের দিন অনেক কেন্দ্র মধ্যরাত পর্যন্ত খোলা থাকবে। কারণ প্রত্যন্ত ও সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা কমিয়ে আনা হয়েছে। ফলে অনেক কেন্দ্রে দীর্ঘ লাইন থাকবে। নির্বাচনি আইন অনুসারে, লাইনে দাঁড়ানো সবার ভোট গ্রহণের পরই কেবল কেন্দ্র বন্ধ হবে।

ন্যাশনার ভোট অ্যাট হোম ইন্সটিটিউটের প্রধান নির্বাহী আম্বার ম্যাকরেইনল্ডস বলেন, ফলাফলে বিলম্বের জন্য ডাক ভোটকে দায়ী করা হয়। কিন্তু ভুলে গেলে চলবে না যে, ভোটকেন্দ্র বন্ধ না হলে ফলাফল ঘোষণা করা যাবে না।

২০১৬ সালের নির্বাচনে মধ্যরাতের আড়াই ঘণ্টাপর বার্তা সংস্থা এসোসিয়েডেট প্রেস জানায় ৪৫ তম প্রেসিডেন্ট হচ্ছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। ২০০৪ সালে ভোটের দিনের পরদিন সকাল পর্যন্ত জর্জ বুশকে বিজয়ী মানতে অপেক্ষা করেছিলেন জন কেরি। ২০০০ সালে বুশকে অপেক্ষা করতে হয়েছিল আরও বেশি। ভোটের দিন থেকে ৩৬ দিন পর ১২ ডিসেম্বর সুপ্রিম কোর্ট ফ্লোরিডা পুনরায় গণনা বন্ধ করার নির্দেশ দেওয়ার পরই বুশ জয়ের ব্যাপারে নিশ্চিত হন।