‘মাছি’ যখন যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনি বিতর্কের তারকা


বুধবার মাইক পেন্স ও কমলা হ্যারিসের লাইভ টিভি বিতর্কে বেশ কিছু সময় একটি মাছি দর্শকদের মনোযোগের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছিল। নিউ ইয়র্ক টাইমস জানিয়েছে, উড়তে থাকা সেই মাছিটি খানিকক্ষণ বসে ছিল পেন্সের মাথায়। সম্প্রচারমাধ্যম সিএনএন বলছে, দুই ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রার্থীর মধ্যে সাধারণ এক বিতর্কে উপস্থিত হয়ে মাছিটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তারকা হয়ে ওঠে!

মাছিটি পেন্সের মাথায় কতক্ষণ বসে ছিল, স্থানীয় এক টিভি সাংবাদিক তা বের করেছেন। তিনি বলছেন,  দুই মিনিট ৩ সেকেন্ড। ফিটফাট সুবিন্যস্ত চুলের মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট অবশ্য তার মাথার ডানদিকে মাছির উপস্থিতি টের পেয়েও কোনও ধরনের প্রতিক্রিয়া দেখাননি। উড়ে যাওয়ার আগে সামান্য নড়াচড়া ছাড়া বেশিরভাগ সময় মাছিটি পেন্সের ধবধবে সাদা চুলে বসেই ছিল।

মার্কিন টেলিভিশনগুলোতে সরাসরি প্রচারিত বিতর্ক অনুষ্ঠানে মাছিটি দেখা যাওয়ার পরের কয়েক ঘণ্টায় ‘দ্য ফ্লাই’ শব্দটি সাত লাখেরও বেশি বার টুইট করা হয়েছে। ডেমোক্র্যাট প্রেসিডেন্ট প্রার্থী জো বাইডেনের পক্ষে প্রচারণাকারীরা এই ঘটনার পুরো সুযোগ নিচ্ছেন। ‘ফ্লাইউইলভোটডটকম’ নামের একটি ডোমেইন কিনে নিয়েছেন তারা। আর অপরদিকে জো বাইডেন তার টুইটারে একটি মাছি তাড়ানো লাঠি ধরে রাখা ছবি টুইট করেন। বাইডেনের ছবিটিতে এরইমধ্যে পাঁচ লাখেরও বেশি লাইক পড়েছে।

এদিকে ট্রাম্পের মিত্র কেন্টাকির সিনেটর পল র‌্যান্ড কৌতুক করে বলেছেন, মাছিটি গোপন রাষ্ট্রযন্ত্রের গোয়েন্দাগিরির প্রমাণ; তবে কেন এই বিতর্কে সে হাজির হয়েছিল, মঞ্চ ছেড়ে যাওয়া মাছিটির মুখ থেকে এ বিষয়ে কিছু জানা যায়নি।