সংযুক্ত আরব আমিরাতে হামলার হুমকি ইরানের


সম্পর্ক স্বাভাবিক করতে ইসরায়েলের সঙ্গে চুক্তি করায় সংযুক্ত আরব আমিরাতে হামলার হুমকি দিয়েছে ইরান। শনিবার (১৫ আগস্ট) দেশটির সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনি সমর্থিত দৈনিক কায়হানের প্রতিবেদনে এ হুমকি দেওয়া হয়েছে। সংবাদপত্রটির এডিটর ইন চিফকে খামেনিই নিয়োগ দিয়ে থাকেন। সৌদি সংবাদমাধ্যম আরব নিউজের প্রতিবেদন এ তথ্য জানা গেছে।

১৩ আগস্ট (বৃহস্পতিবার) সংযুক্ত আরব আমিরাত ও ইসরায়েল নিজেদের মধ্যে সম্পর্ক স্বাভাবিক করতে একটি ‘ঐতিহাসিক চুক্তিতে’ সম্মত হওয়ার কথা জানায়। ফিলিস্তিনিরা তাৎক্ষণিকভাবে একে ‘বিশ্বাসঘাতকতা’ অ্যাখ্যা দেয়। তারা আরব লীগ ও অরগানাইজেশন অব ইসলামিক কোঅপারেশনকে (ওআইসি) চুক্তিটি প্রত্যাখ্যান করে বিবৃতি দিতেও আহ্বান জানায়। অপরদিকে ইসরায়েল ও যুক্তরাষ্ট্র চুক্তি স্বাক্ষরের ক্ষণকে ‘মধ্যপ্রাচ্যে শান্তির জন্য ঐতিহাসিক মুহুর্ত’ হিসেবে অভিহিত করে।  এখন পর্যন্ত উপসাগরীয় কোনও আরব দেশের সঙ্গে ইসরায়েলের কূটনৈতিক সম্পর্ক নেই। তবে ইরানের আঞ্চলিক প্রভাব মোকাবিলায় ইসরায়েলের সঙ্গে এসব দেশের অনানুষ্ঠানিক যোগাযোগ রয়েছে।

শনিবার কায়হানের প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘ফিলিস্তিনি জনগণের সঙ্গে সংযুক্ত আরব আমিরাত বড় ধরনের বিশ্বাসঘাতকতা করেছে। নিরাপত্তার ক্ষেত্রে প্রচণ্ডরকমের পরনির্ভরশীল এ ছোট ও ধনী দেশটিকে সহজে আক্রমণ করা সম্ভব এবং তা ন্যায়সঙ্গত।’

ওয়াশিংটন ডিসিতে উপসাগরীয় দেশবিষয়ক উপদেষ্টা থিওডর কারাসিক মনে করেন, ইরানের এ হুমকিকে গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করা উচিত। আরব নিউজকে তিনি বলেন, ‘ইরানি ক্ষেপণাস্ত্র আট মিনিটের মধ্যে আমিরাতে আঘাত হানতে সক্ষম।’

এদিকে শনিবার টেলিভিশনে দেওয়া ভাষণে  সংযুক্ত আরব আমিরাত ‘বিরাট ভুল’ করেছে বলে মন্তব্য করেছেন ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি।