দক্ষিণ কোরিয়ায় বৃষ্টি-বন্যায় ৩০ জনের মৃত্যু, নিখোঁজ ১২


দক্ষিণ কোরিয়ায় ভারী বৃষ্টিপাত ও বন্যায় কমপক্ষে ৩০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া এখন পর্যন্ত আরও ১২ জন নিখোঁজ রয়েছে। এক মাসের বেশি সময় ধরে ভারী বৃষ্টিপাতে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে মানুষের জীবন-যাপন।

দেশটিতে গত সাত বছরের মধ্যে এবারই সবচেয়ে বেশি বৃষ্টিপাত, বন্যা এবং ভূমিধসের ঘটনা ঘটেছে। ফলে বহু মানুষকে নিরাপদে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

ইয়োনহোপ নিউজ এজেন্সি জানিয়েছে, রোববার আরও ৬ হাজারের মতো মানুষকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। কেন্দ্রীয় বিপর্যয় ও সুরক্ষা সংস্থার হেডকোয়ার্টারের বরাত দিয়ে ইয়োনহাপ জানিয়েছে, দূর্যোগের কারণে বিভিন্ন দুর্ঘটনায় কমপক্ষে আটজন আহত হয়েছে।

১১টি প্রদেশ ও শহরের ৫ হাজার ৯শ’র বেশি মানুষ তাদের বাড়ি-ঘর ছেড়ে যেতে বাধ্য হয়েছে। এর মধ্যে প্রায় ৪ হাজার ৬শ জন অস্থায়ী আশ্রয়কেন্দ্রে আশ্রয় নিয়েছে।

বৃষ্টি-বন্যায় প্রায় ৯ হাজার তিনশো হেক্টর কৃষি জমির ফসল নষ্ট হয়েছে। শুক্রবার ভূমিধসের ঘটনায় পাঁচটি বাড়ি মাটির নিচে চাপা পড়েছে। এতে পাঁচজন নিহত হয়েছে। এছাড়া ঘটনাস্থল থেকে আরও তিনজনকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে।

গুয়াংজু বিমানবন্দরে ১২টি অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে। দূর্যোগের বিষয়ে লোকজনকে সতর্ক করা হয়েছে।

এদিকে, দক্ষিণ কোরিয়ার দক্ষিণাঞ্চলের দিকে এগিয়ে আসছে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় জাংমি। চলতি বছরের ৫ম ঘূর্ণিঝড় এটি। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে আরও বেশি বৃষ্টি এবং বন্যা পরিস্থিতি তৈরি হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।