রাজধানী মিরপুর ১১ নং এলাকার স্থায়ী বাসিন্দা শেখ মোহাম্মদ আলী আড্ডু। পারিবারিকভাবেই তারা আওয়ামী রাজনীতির সাথে যুক্ত সকলেই।

‘মানব সেবাই বড় ধর্ম’। পৃথিবীর সকল ধর্মেই এই কথা ব্যক্ত করা হয়েছে। মানবসেবায় নিজের সত্ত্বাকে পুরোপুরি বিলিয়ে দেওয়া মানুষের সংখ্যা হাতেগোনা। আদি ইতিহাসে মহৎপ্রাণ মানুষ ছাড়া সাধারণ কাউকে আর্ত-মানবতার সেবায় এগিয়ে আসতে দেখা যায় নি।

তবে সময়ের সাথে সাথে এমন অনেক মানুষের সন্ধান মিলেছে। তাদেরই একজন রাজধানী মিরপুর ১১ নং এলাকার স্থায়ী বাসিন্দা শেখ মোহাম্মদ আলী আড্ডু ও তার পরিবার সারাজীবন কাটিয়েছেন অসহায় মানুষের কল্যানে ।

মানুষের সাহায্যে কিভাবে নিজেকে বিলিয়ে দেওয়া যায় সে চিন্তাই ঘুরপাক খেত শেখ মোহাম্মদ আলী আড্ডুর মনে। তবে চিন্তাতেই আবদ্ধ থাকেন নি তিনি। বাস্তবেও তার যথার্থ প্রয়োগ করেছেন এবং করছেন।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

শেখ মোহাম্মদ আলী আড্ডু এই প্রতিবেককে বলেন, আমার ভাই শেখ মোহাম্মদ সেলিম মিরপুরের হাফিজিয়া মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা ও পরিচালনা করতেন বর্তমানে তা আমি সেই দ্বায়িত্ব পালন করছি । বাইতুল মামুর জামে মসজিদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে দাযত্বি নিয়োজিত আছি। প্যারিস রোড মসজিদ বাইতুল ফালাহ কম্পেক্সের সিনিয়র সদস্য পদে নিয়োজিত আছি। আমার বড় ভাই শেখ মোঃ শাকুর রানা গার্মেন্টসের ম্যানেজিং ডাইরেক্টর দায়িত্ব আছেন।

শুধু মিরপুর ১১ নং এলাকায় নয় গোটা মিরপুর জুড়েই রয়েছে তাদের পরিবারের সুখ্যাতি। মোহাম্মদ আলী আড্ডু বলেন আমরা ৮ ভাই ৪ বোন। বড় ভাই মৃত এ্যাডভোকেট শেখ সেলিম ছিলেন পল্লবী থানা আইন বিষয়ক সম্পাদক ও বিডিআর মামলা স্পেশাল প্রফেসিকটর, সেজো ভাই শেখ মোঃ জামিল কাপড়ের ব্যবসায়ী, মেজো ভাই এ্যাডভোকেট শেখ মোঃ ইকবাল, শেখ মোঃ ওয়াসিম এ্যাডখোকেট শেখ মোঃ পারভেজ এ্যাডভোকেট, আমি শেখ মোহাম্মদ আলী আড্ডু শিক্ষানবিশ আইনজীবি, ছোট ভাই শেখ মোঃ আলমগীর সেও শিক্ষানবিশ আইনজীবি। দেশের যেকোন দূর্যোগময় পরিস্থিতিতে মিরপুরে আমাদের এই পরিবার এলাকার বাসিন্দাদের পাশে থাকেন সবার আগে।

এই করোনার মাঝেও আমি ও আমার পরিবার এলাকার অসহায় কর্মহীন হয়ে পড়া প্রায় ৫০০০ মানুষের মাঝে চাল, ডালসহ নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন। মোহাম্মদ আলী আড্ডু থেকেছেন এলাকাবাসীর সকল বিপদে আপদে। শুধু যে এলকাবাসীর মাঝে তা নয় ছাত্রলীগ, যুবলীগ, আওয়ামীলীগ সবখানেই প্রিয় মানুষ এই মোহাম্মদ আলী আড্ডু। আর এই জনপ্রিয়তাই কাল হয়ে দাড়িয়েছে আড্ডুর জন্য। কিছু স্বার্থনেষী মহল বিভিন্ন ।

অনলাইনে ফেসবুকে বিভিন্ন ধরনের গুজব রটাচ্ছেন। মোহাম্মদ আলী আড্ডু বলেন গত কয়েকদিন আগে একটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল আমাকে নিয়ে লিখেছে আমি নাকি বিভিন্ন অবৈধ্য ব্যবসার সাথে জড়িত কিন্তু ভেবে অবাক হয়েছি যে তারা কোথাও এটা উল্লেখ করে নাই যে আমি কোথায় কিভাবে অবৈধ্য ব্যবসা করি বা কোন থানায় আমার নামে মাদক মামলা আছে।

রাজনীতি করি শত্রু থাকাটা অস্বাভাবিক নয় মোটেও। মিথ্যাচার অনেকে করবেই কিন্তু কোন নিউজ কিভাবে ভিত্তিহীনভাবে প্রকাশ করে। হয়তো বা এই জন্যই মানুষ সন্মানিত সাংবাদিকদের বলে সাংঘাতিক তবে প্রকৃত সাংবাদিকরা কখনোই এমন হতে পারে না। তিনি বলেন আমি অন্যায় কোন কাজ করলে সেটা অবশ্যই তথ্য উপাত্ত নিয়ে লেখা একজন সংবাদকর্মীর দ্বায়িত্ব। কিন্তু আমি যে কাজ করি না সেটা লিখলে তা রীতিমতো মিথ্যাচার ছাড়া আর কিছুই নয়।