পশ্চিমবঙ্গে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা


করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে পশ্চিমবঙ্গে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। শনিবার রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে এ সংক্রান্ত নির্দেশনা জারি করা হয়েছে। এর আগে দিল্লি, কেরালা, বিহার, মধ্যপ্রদেশ ও ছত্তিসগড়েও একই রকম পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে যুক্তরাজ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর অফিস থেকে জারি করা নির্দেশে বলা হয়েছে, সোমবার থেকে আপাতত আগামী ৩১শে মার্চ পর্যন্ত সমস্ত সরকারি-বেসরকারি স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসা, বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকবে।

ভারতে ১৩ই মার্চ শুক্রবার পর্যন্ত করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ৮১। আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে দুইজন। অবশ্য এখন পর্যন্ত পশ্চিমবঙ্গে কোনও রোগী পাওয়া যায়নি।

কলকাতা থেকে বিবিসি-র সংবাদদাতা অমিতাভ ভট্টশালি জানিয়েছেন, রাজ্যে জনজীবন এখন পর্যন্ত স্বাভাবিক থাকলেও জনমনে উদ্বেগ বাড়ছে। কলকাতায় প্রচুর মানুষকে এখন মুখে মাস্ক লাগিয়ে চলাফেরা করতে দেখা যাচ্ছে। অমিতাভ বলছেন, ‘বাজার থেকে মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার হাওয়া হয়ে গেছে।’

কলকাতায় বিমানবন্দর এবং বড় দুইটি রেল স্টেশন ছাড়াও বড় বড় অফিস ভবন এবং হোটেলের গেটে থার্মাল ইমেজিং ব্যবহার করে মানুষের শরীরের তাপমাত্রা মাপা হচ্ছে।

বন্ধ হয়ে যাচ্ছে সিনেমা হল, শপিং মল

করোনা ভাইরাস নিয়ে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ায় দিল্লি, কেরালা, মহারাষ্ট্র ও কর্ণাটকে সিনেমা হল, বড় বড় শপিং মল বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে। মহারাষ্ট্রের পাঁচটি শহরে সব সিনেমা হল ও শপিং মল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

ভারতজুড়ে খেলাধুলার বিভিন্ন ইভেন্ট স্থগিত করা হয়েছে। আইপিএল ২৯ মার্চ থেকে আপাতত ১৫ই এপ্রিল পিছিয়ে পর্যন্ত নেওয়া হয়েছে। গোয়ায় শনিবার ইন্ডিয়ান সুপার লিগ (আইএসএল) ফুটবলের ফাইনাল ছিল বলতে গেলে দর্শকশূন্য। সফরকারী দক্ষিণ আফ্রিকার সঙ্গে দুইটি একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচ (লক্ষ্মৌ এবং কলকাতায়) বাতিল করা হয়েছে। দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেটে দল দেশে ফিরে যাচ্ছে।