কেন দলে নেই ধোনি, নির্বাচকের অদ্ভুত দাবি


দল থেকে বাদ পড়লেন মহেন্দ্র সিং ধোনি। শুনতেও কেমন জানি লাগে! ভারতকে দু দুটি বিশ্বকাপ জেতানো অধিনায়ক ফিট আর সুস্থ থাকার পরও দলে জায়গা পাবেন না? তা কি হয় নাকি? তবে এমনটা হয়েছে। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ঘরের মাঠে টি-টোয়েন্টি সিরিজের দলে রাখা হয়নি ফেরার অপেক্ষায় থাকা ধোনিকে।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে ধোনি নিজেই বিশ্রাম চেয়েছিলেন। এই সময়টায় ভারতীয় সেনাবাহিনীর হয়ে দেশের সেবা করেন। তবে দুই মাসের বিরতি কাটিয়ে ক্রিকেটে ফেরার অপেক্ষায় এখন সাবেক ক্যাপ্টেন কুল। সমর্থকরা আশা করেছিলেন, দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে আসন্ন টি-টোয়েন্টি সিরিজেই দেখা যাবে অভিজ্ঞ এই উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যানকে।

কিন্তু দল ঘোষণার পর দেখা গেল তাতে নেই ধোনির নাম। যেটা নিয়ে এখন ভারতীয় ক্রিকেটে বড় আলোচনা। ধোনির মতো একজন খেলোয়াড় ক্যারিয়ারের শেষ সময়ে এসে এমন উপেক্ষার মুখে পড়বেন, মানতে পারছেন না অনেকেই।

তবে ভারতীয় দলের একজন প্রধান নির্বাচক জানালেন অন্যরকম তথ্য। তার দাবি, ধোনিকে বাদ দেয়া হয়নি, বরং তিনি নিজেই ২০২০ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্য দল গোছাতে সময় দিয়েছেন নির্বাচকদের।

ভারতীয় দলের ওই নির্বাচক বলেন, ‘ধোনিকে বাদ দেয়ার প্রশ্নই আসে না। বরং তিনি আমাদের সময় দিয়েছেন সামনে এগিয়ে যাওয়ার জন্য, যাতে করে আগামী বছরের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্য পরিকল্পনা করা যায়। তিনি অনুধাবন করছেন যে, এই জায়গাটায় মানুষের চাওয়া এবং কথাকে বিবেচনায় নিলে হবে না। যদি রিশাভ পান্ত ইনজুরিতে পড়ে, তবে সীমিত ওভারে আমাদের হাতে বিকল্প নেই। তাই ধোনি বিরতি নিতে সম্মত হয়েছেন। এই মুহূর্তে তাকে উপেক্ষা করার প্রশ্নই আসে না। ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের আগেও কিন্তু তিনি দুই মাস বিরতি নিয়েছিলেন। আমি নিশ্চিত, আমরা হিসেব নিকেশ করেই সব করছি।’

বয়সটা ৩৮ পেরিয়েছে। ব্যাটসম্যান ধোনির প্রভাবটা মাঠে আগের মতো আর দেখা যায় না। তাকে নিয়ে ভাবার কারণ কি এটাই? এমন প্রশ্নে ওই নির্বাচক উল্টো প্রশ্ন ছুড়ে দেন প্রশ্নকর্তাকে।

তিনি বলেন, ‘এটা কি সমর্থকদের ভাবনার কথা বলছেন? টিম ম্যানেজম্যানট পরিষ্কারভাবেই জানে, তিনি কি করতে পারেন। এমনকি এখন পর্যন্ত, আমরা ফিনিশার হিসেবে তার বিকল্প খুঁজে পাইনি। যদি আমাদের কাছে সেটা থাকতোই, তবে ধোনিকে উপরের দিকে ব্যাট করতে পাঠানো হতো না। এমনকি বিশ্বকাপেও আমরা জানতাম, তার অভিজ্ঞতাটা টেল এন্ডারদের গাইড করার জন্য কাজে লাগবে। সমালোচকরা ধোনিকে সেমিতে খেলানো নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন, কিন্তু দেখেছেন তো তিনি প্রায় করেই ফেলেছিলেন (ম্যাচ জেতানোর কাজ)।’