আমিরাতে অবৈধ প্রবাসীদের সাধারণ ক্ষমার ঘোষণা


সংযুক্ত আরব আমিরাতে (ইউএই) বসবাসরত অবৈধ প্রবাসীদের তিন মাসের সাধারণ ক্ষমার ঘোষণা দিয়েছে দেশটির সরকার।

আগামী ১ আগস্ট থেকে তিন মাসের এই সাধারণ ক্ষমা কার্যকর হবে। দেশটির এক শীর্ষ কর্মকর্তার বরাত দিয়ে এ তথ্য জানায় গালফ নিউজ।

ফেডারেল অথরিটি ফর আইডেন্টিটি অ্যান্ড সিটিজেনশিপের বিদেশি নাগরিকবিষয়ক ও বন্দর বিভাগের ভারপ্রাপ্ত মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার সাইদ রাকান আল রাশেদি জানান, ঘোষিত সময়ের মাঝে অবৈধ প্রবাসীরা চাইলে নামমাত্র ফি দিয়ে তাদের কাগজপত্র বৈধ করে নিতে পারবেন অথবা কোনো জেল-জরিমানা ছাড়াই আমিরাত ছাড়তে পারবেন।

ওই কর্মকর্তা আরও জানান, দ্রুতই সংবাদ সম্মেলন করে ‘বৈধতা নিশ্চিত করে নিজেকে সুরক্ষিত করুন’ শীর্ষক এই সাধারণ ক্ষমার বিষয়ে বিস্তারিত জানানো হবে।

২০১৩ সালেও দুই মাসের জন্য সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করা হয়েছিল। সে সময়ে ৬২ হাজার অবৈধ অভিবাসী নিজেদের বৈধ করে নিয়েছিলেন।

আল রাশেদি জানান, সিরিয়া, লিবিয়া ও ইয়েমেনের মতো যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশের নাগরিকদের জন্য এক বছর বসবাসের বিশেষ ভিসা অনুমোদন করা হবে। এ ছাড়া ফিলিস্তিনের মতো যেসব দেশের নাগরিক রাজনৈতিক অস্থিরতার জন্য নিজ দেশে ফিরতে পারছেন না, তাদের জন্যও এ বিশেষ মানবিক ভিসা পাবেন।

কারণ হিসেবে তিনি জানান, ফিলিস্তিনিদের দেশে ফেরার পথ বন্ধ হয়ে গেছে। পর্যটক বা কর্মসংস্থান ভিসায় এসব দেশ থেকে যারা আমিরাতে এসে মেয়াদ শেষে অবৈধ হয়ে গেছেন তারা এই মানবিক ভিসার আওতায় পড়বেন। তাদের কোনো জরিমানা দিতে হবে না। উল্লেখ্য, বিধবা ও তালাকপ্রাপ্তরাও এক বছরের এই বিশেষ ভিসা পাবেন।

আমিরাতের সরকারি এক সূত্র জানিয়েছে, গত দুই বছরে ২৫ হাজার মানবিক ভিসা দিয়েছে দেশটির সরকার। এর মাঝে প্রায় সাড়ে ১২ হাজার ব্যক্তি জরিমানা থেকে রেহাই পেয়েছেন। বাকিরা আংশিক ছাড় পেয়েছেন।