পারলেন না মুস্তাফিজ, হারল মুম্বাই


জয়ের জন্য শেষ দুই ওভারে ১৬ রান প্রয়োজন ছিল দিল্লি ডেয়ারডেভিলসের। ১৯তম ওভারে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের ডানহাতি পেসার জসপ্রিত বুমরাহ দিলেন পাঁচ রান। শেষ ওভারে মুস্তাফিজুর রহমানের জন্য থাকে ১১ রান। প্রথম বলে চার ও দ্বিতীয় বলে ছয় মেরে ম্যাচটা হাতের মুঠোয় পুরে নেন দিল্লির ওপেনার জেসন রয়।

এরপরই খেলা আরও জমিয়ে দেন মুস্তাফিজ। টানা তিন বলে করেন ডট। স্লোয়ার কাটারে রয়কে বিভ্রান্ত করেন বাঁহাতি এই পেসার। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি মুম্বাইয়ের। ম্যাচের শেষ বলে এক রান নিয়ে দলকে সাত উইকেটের জয় এনে দেন রয়।

১৯৫ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে উদ্বোধনী জুটিতে ৫০ রান তোলে দিল্লি। এক প্রান্তে রয় ঝড় তুললেও রয়েসয়ে খেলেন অধিনায়ক গৌতম গম্ভীর। বাঁহাতি এই ওপেনারকে ফিরিয়ে বড় হতে থাকা এই জুটি ভাঙেন মুস্তাফিজ। প্রথম স্পেলে দুই ওভার বল করে সাত রান দিয়ে এক উইকেট নেন তিনি।

ইনিংসের চতুর্থ ওভারে মুস্তাফিজুর রহমানকে আক্রমণে পাঠান মুম্বাইয়ের অধিনায়ক রোহিত শর্মা। নিজের প্রথম ওভারেই আস্থার প্রতিদান দেন মুস্তাফিজ। পাওয়ার প্লে চলাকালীন সেই ওভারে মাত্র চার রান দেন বাংলাদেশের বাঁহাতি এই পেসার।

পাওয়ার প্লের শেষ ওভারে আবারও বোলিংয়ে যান মুস্তাফিজ। সেই ওভারের প্রথম বলেই গম্ভীরকে ফেরান তিনি। ব্যাক অফে লেন্থ ডেলিভারিতে পুল করতে গিয়ে মিড উইকেটে রোহিত শর্মার হাতে ক্যাচ দেন তিনি। সেই ওভারে তিন রান খরচ করেন মুস্তাফিজ।

তবে সবকিছুই বৃথা গেছে রয়ের মারকুটে ব্যাটিংয়ে। ছয়টি ছক্কা ও ছয়টি চারের মারে ৫৩ বলে ৯১ রান করেন ডানহাতি এই ইংলিশ ব্যাটসম্যান। ২৫ বলে ৪৭ রান করেন রিশাব প্যান্ট।

এর আগে ব্যাট করে সাত উইকেটে ১৯৪ রান সংগ্রহ করে মুম্বাই। দিল্লির বোলারদের ওপর ঝড় বইয়ে দিয়ে উদ্বোধনী জুটিতে ১০২ রান তোলেন সূর্যকুমার যাদব ও এভিন লুইস। দুজনের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে ভর করে সাত উইকেটে ১৯৪ রানের বড় সংগ্রহ পেয়েছে মুম্বাই।

মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে শুরু থেকেই ট্রেন্ট বোল্ট-মোহাম্মদ শামিদের ওপর চড়াও হন লুইস-যাদব। দলীয় ১০২ রানে ফেরেন উইন্ডিজের বাঁহাতি ওপেনার লুইস। চারটি চার ও চারটি ছক্কার মারে ২৮ বলে ৪৮ রান করেন মারকুটে এই ব্যাটসম্যান।  ২৩ বলে পাঁচ চার ও দুই ছক্কায় ৪৪ রান করেন ঈশান কিশান।

দুটি করে উইকেট নেন বোল্ট, ড্যানিয়েল ক্রিশ্চিয়ান ও তেওয়াইতা। এক উইকেট নেন শামি।