এমসিসিতে বাংলাদেশের ক্রিকেট নিয়ে যা বললেন সাকিব


Shakib 962472659

এমসিসিতে অন্যান্যদের সঙ্গে সাকিব আল হাসান।

 

 বাংলাদেশি হিসেবে প্রথমবারের মতো মেরিলিবোন ক্রিকেট ক্লাবের (এমসিসি) বার্ষিক সভায় নিমন্ত্রণ পেয়েছেন সাকিব আল হাসান। অস্ট্রেলিয়ার রাজধানী সিডনিতে মঙ্গলবার ও বুধবার দুদিনব্যাপী সভায় সাকিবের সঙ্গে আরও ছিলেন রিকি পন্টিং, কুমার সাঙ্গাকারারমতো কিংবদন্তিরা। সভায় নিজের বক্তব্যে সাকিব বাংলাদেশের তরুণ ক্রিকেটারদের টেস্টের প্রতি অনিহার কথা তুলে ধরেন। আইসিসিরদেওয়া অর্থ বাংলাদেশে কিভাবে খরচ হচ্ছে সেটা নিয়েও মুখ খোলেন তিনি।

সাকিব তার বক্তব্যে জানিয়েছেন, বাংলাদেশের তরুণ ক্রিকেটাররা টেস্ট ক্রিকেটে আগ্রহ হারিয়েছে। সাদা পোশাকের ফরম্যাটকে ক্রিকেটাররা আর লক্ষ্য হিসেবেও দেখে না। কারণ টেস্টের চেয়ে টি-টোয়েন্টি থেকেই বেশি আয়ের সুযোগ থাকে।

আইসিসির বরাদ্দকৃত অর্থ প্রসঙ্গে তিনি তার বক্তব্যে জানান, বাংলাদেশকে দেওয়া অর্থ হয়তো ঠিক জায়গাতেই যাচ্ছে। কিন্তু সেই অর্থ ক্রিকেটারদের কাছে কতটা যাচ্ছে তা নিয়ে শঙ্কা রয়েছে।

তার কথার সূত্র ধরেই এমসিসি বিশ্ব ক্রিকেটে সতর্কবার্তা জানিয়েছে। ক্লাবটির মতে, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ক্রিকেটারদের যে বেতন বৈষম্য তা কমিয়ে না আনতে পারলে দেশের হয়ে খেলার আগ্রহ হারাবে তরুণরা। ফলাফল, বাড়বে ফিক্সিংয়ের মতো দূর্নীতি ও হারাবে টেস্টের স্বর্নালী ইতিহাস।

সভায় সাবেক অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক পন্টিং সাকিবের বক্তব্যকে কেন্দ্র করে বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে বাংলাদেশ ক্রিকেটে চলে আসা কিছু সমস্যা নিয়ে কথা বলেছেন সাকিব। তিনি এটাও উল্লেখ করেছেন যে আইসিসির দেওয়া অর্থ কোথায় কিভাবে খরচ হয় সেটা আইসিসিকেই নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। এগুলো ঠিক করতে না পারলে দূর্নীতি বাড়বে।’

আন্তর্জাতিক সীমানার মতো, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটেও বেতনের ব্যবধানটা লম্বা। যেখানে অস্ট্রেলিয়ার স্টিভেন স্মিথ ২০১৭ সালে আয় করেছেন ১৫ লাখ ডলার, সেখানে জিম্বাবুইয়ান গ্রায়েম ক্রেমারের উপার্জন ৮৬ হাজার ডলার। সাকিবের উপার্জন এক লাখ ৪০ হাজার ডলার। তাই উপার্জনের এই বৈষম্য যত কমানো যাবে ক্রিকেটের উন্নতি তত বৃদ্ধি পাবে বলে ভাবনা পন্টিং-সাকিবদের।

অস্ট্রেলিয়ান গ্রেট পন্টিংয়ের মতে, ইংল্যান্ড-অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটারদের জাতীয় দল ছেড়ে আইপিএল খেলতে দেখা যাবে না। কারণ বোর্ড থেকে তারা খেলোয়াড়দের মুল্যায়ন করা হয়। বাকিদেরও এমনটা করা উচিত। তাহলে দেশের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করতে আগ্রহ হারাবে না ক্রিকেটাররা।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*