বাঘের গর্জনে ‘হার্ট অ্যাটাকে’ এক ডজন বানরের মৃত্যু


monkey-179-1670744396

বানর থেকে মানুষ এসেছে এমনটা অনেকে মনে করলেও বিতর্ক থাকায় আমরা সেদিকে না যাই। কিন্তু বানরের আচরণ ও মানুষের আচরণে যে অনেকক্ষেত্রেই মিল রয়েছে সে বিষয়ে কোনো সন্দেহ নাই। বাঘকে দেখলে বা বাঘের গর্জন শুনলে যেকোনো মানুষ ভয় পাবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু বানরও ভয় পাবে? বানর এবং বাঘ দুজনইতো বনে বাস করে। তারাতো এটাতে অভ্যস্ত হওয়ার কথা। ভারতের একটি জঙ্গলে এবার বাঘের গর্জনে আতঙ্কিত হয়ে ডজনখানেক (১২টি) বানরের মৃত্যু হয়েছে।

জানা গেছে, বাঘের গর্জনের সময় বানরগুলোর হার্ট অ্যাটাকে মৃত্যু হয়েছে। পশু চিকিৎসকরা ময়নাতদন্ত শেষে এমটাই দাবি করেছেন।

এতগুলো বানরের মৃত্যুর কারণ হিসেবে প্রথমে ধারণা করা হয়েছিল বিষ প্রয়োগের মাধ্যমে বনরগুলোর মৃত্যু হয়েছে। তবে ভারতের উত্তর প্রদেশের পশুচিকিৎসকরা ময়নাতদন্ত শেষে জানায় অন্য কথা। বানরগুলো কার্ডিয়াক অ্যারেস্টে মৃত্যু হয়েছে।

স্থানীয়রা জানায়, ওই এলাকায় প্রচুর বাঘের আনাগোনা আছে। আর বানরগুলোর যখন মৃত্যু হয়েছিল তখন বাঘের প্রচুর গর্জন শোনা যাচ্ছিল।

পশু চিকিৎসকরা আশঙ্কা করছেন হয়তোবা বাঘের গর্জনেই ওই বানরগুলো হার্ট অ্যাটাক করে মারা গেছে।

তবে বন্যপ্রাণী বিশেষজ্ঞরা বলছেন অন্য কথা। তাদের দাবি কোনো ইনফেকশনের কারণে বানরগুলোর মৃত্যু হতে পারে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়ায় ডা: ব্রিজেন্দ্র সিং নামে এক পশুচিকিৎসক জানায়, বানর বন্যপ্রাণী তাই বাঘের গর্জনের কারণে তাদের মৃত্যু হওয়ার কথা নয়। সম্ভবত ওই ১২টি বানর কোনো ইনফেকশনে আক্রান্ত হয়েছিল।