সাঈদীর সর্বোচ্চ দণ্ড পাওয়া উচিত ছিল: মাহবুবে আলম


 

 

মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে জামায়াত নেতা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর আমৃত্যু কারাদণ্ড বহালের পর অ্যার্টনি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেছেন, ‘প্রসিকিউশনে ব্যর্থতার কারণে এ রায়। দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর মতো একজন যুদ্ধাপরাধীর সর্বোচ্চ দণ্ড পাওয়া উচিত ছিল।’

১৫ মে সোমবার সাঈদীর ফাঁসি চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষ এবং সাজা থেকে খালাস চেয়ে পুনর্বিবেচনার (রিভিউ) আবেদনের দ্বিতীয় দিনের শুনানি শেষে দুই আবেদন খারিজ করে দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর আমৃত্যু কারাদণ্ড বহাল রাখেন আপিল বিভাগ।

সকাল সোয়া ৯টায় প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগের পাঁচ সদস্য বেঞ্চে শুনানি শুরু হয়। শুনানি শেষে ১১টা ৫ মিনিটে রায় দেন আপিল বিভাগ।

বেঞ্চের অপর সদস্যরা হলেন, বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহহাব মিঞা, বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন, বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী ও বিচারপতি মির্জা হোসাইন হায়দার।

গত ৪ এপ্রিল প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে চার সদস্যের আপিল বিভাগ বেঞ্চ মামলাটি শুনানির জন্য রোববার ধার্য করে আদেশ দিয়েছিল। সে অনুযায়ী রোববার শুনানি শুরু হয়ে সোমবার বিষয়টি নিষ্পত্তি হয়।

একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের সময় হত্যা, ধর্ষণ, লুটপাট, নির্যাতন ও ধর্মান্তকরণসহ মানবতাবিরোধী বিভিন্ন অপরাধের দায়ে ২০১৩ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ জামায়াত নেতা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীকে মৃত্যুদণ্ড দেন। ইব্রাহিম কুট্টি ও বিসাবালীকে হত্যা এবং হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িঘরে আগুন দেওয়ার ঘটনায় সাঈদীকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়। রায়ের পূর্ণাঙ্গ কপি পাওয়ার পর খালাস চেয়ে আসামি পক্ষ এবং সাজা বহাল চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষ পৃথক আবেদন করে। ২০১৪ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর তৎকালীন প্রধান বিচারপতি মোজাম্মেল হোসেনের নেতৃত্বে আপিল বিভাগ সংখ্যাগরিষ্ঠতার ভিত্তিতে সাঈদীর সাজা কমিয়ে আমৃত্যু কারাদণ্ড দেন।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*