ভয়াবহ শীতে ইউরোপে ২৩ জনের মৃত্যু


snowy-road

ভয়াবহ তুষারপাতে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে ইউরোপের জনজীবন।প্রচণ্ড তুষারপাত ও ভয়ঙ্কর ঠাণ্ডায় ২ জনের বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে। এই সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে জানিয়েছে সংবাদমাধ্যমগুলো।  খবর: বিবিসি,এএফপি

বিবিসির খবরে বলা হয়, গ্রিসের বিভিন্ন দ্বীপ এবং ইতালির দক্ষিণাঞ্চল বরফের চাদরে ঢাকা পড়ে গেছে। ইতালিতে ফেরি এবং বিমান চলাচল স্থগিত করা হয়েছে।

রাশিয়ায় রাতে তাপমাত্রা হিমাঙ্কের নীচে ৩০ ডিগ্রি পর্যন্ত নেমে যাচ্ছে। রুশরা ১২০ বছরের মধ্যে এবার সবচেয়ে ঠান্ডা আবহাওয়ায় বড়দিন পালন করেছে।শীত এমন বেড়েছে যে, তা তুরস্ককেও ছুঁয়েছে, সেখানেও এখন বরফ পড়ছে ক্রমাগত, বসফরাস প্রণালিতে বন্ধ জাহাজ চলাচল।

ইতালিতে সাত জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে, যাদের পাঁচজন গৃহহীন ছিল। শনিবার সিসিলি, বারি ও ব্রিনদিসি বিমানবন্দর বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। রাজধানী রোমের তাপমাত্রাও হাড় হিম করে দিচ্ছে। সোমবার দক্ষিণাঞ্চলের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ রাখা হতে পারে।

তুলনামূলক উষ্ণ হলেও গ্রিসের উত্তরাঞ্চলে তাপমাত্রা মাইনাস ১৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে গেছে। এথেন্সে তাপমাত্রা শূন্যের কাছাকাছি পৌঁছে গেছে। অনেক দ্বীপ বরফে ঢাকা পড়েছে। প্রচণ্ড ঠান্ডা তাপমাত্রায় গ্রিসের বিভিন্ন দ্বীপে অস্থায়ী শিবিরে আশ্রয় নেওয়া হাজার হাজার শরণার্থী মানবিক বিপর্যয়ে পড়েছে।

পোল্যান্ডে শীতে অন্তত ১০ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। প্রাগে ঠান্ডায় তিনজন মারা গেছে, যাদের দুইজন গৃহহীন ছিল। এ ছাড়া চেক রিপাবলিকে মারা গেছেন তিনজন।

বুলগেরিয়ার দক্ষিণপূর্বাঞ্চলে একটি জঙ্গলে ইরাকের দুই শরণার্থীকে মৃত অবস্থায় পাওয়া গেছে। প্রচণ্ড ঠান্ডায় তাদের মৃত্যু হয়েছে বলে ধারণা কর্তৃপক্ষের।

ইউরোপ জুড়ে এই আবহাওয়া আরও কয়েকদিন থাকবে বলে ধারণা করছেন আবহাওয়াবিদরা।