বৈধ সরকারকে টিকিয়ে রাখতেই সিরিয়ায় হামলা: পুতিন


putin

সিরিয়ায় সামরিক অভিযানের পক্ষে যুক্তি দিয়েছেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। তিনি বলেছেন, সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদের বৈধ সরকারকে টিকিয়ে রাখাই এই অভিযানের উদ্দেশ্য ।

রোববার রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন টিভি মস্কোকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে পুতিন বলেন, সিরিয়ায় রাজনৈতিক সমঝোতার জন্য পরিস্থিতি তৈরি করতে চায় মস্কো।

সিরিয়ায় ইসলামিক স্টেটের (আইএস) বদলে দেশটির মধ্যপন্থী বিরোধী গোষ্ঠীর ওপর রুশ বিমান হামলা চালানোর অভিযোগ অস্বীকার করেন তিনি।

রাশিয়ার টানা বিমান হামলার সহায়তা নিয়ে বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে তাৎপর্যপূর্ণ সাফল্য পেয়েছে সেনাবাহিনী। ইদলিব, হামা ও লাটাকিয়া প্রদেশে সরকারি বাহিনী সাফল্য পেয়েছে বলে গতকাল রোববার খবর পাওয়া গেছে। দামেস্ক ও বিরোধী কর্মীরা এ খবর নিশ্চিত করেছে।

আলেপ্পোসহ বিভিন্ন নগরীর সাথে রাজধানীকে সংযোগকারী প্রধান সড়কের কাছকাছি এলাকা প্রধান যুদ্ধক্ষেত্রে পরিণত হয়েছে এবং আসাদ বাহিনী ইদলিবে বিদ্রোহীদের বিচ্ছিন্ন রাখতে চাচ্ছে।

সিরিয়ায় সামরিক অভিযান সম্পর্কে পুতিন বলেন, রাশিয়ার লক্ষ্য দামেস্কের সরকারকে টিকিয়ে রাখা।

পুতিন জোর দিয়ে বলেন, প্রেসিডেন্ট বাশারের প্রতি মস্কোর সমর্থন না থাকলে সন্ত্রাসী গোষ্ঠী সিরিয়া দখল করে নিতে পারে।
রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট বলেন, বাশার সরকার এখন অবরুদ্ধ। জঙ্গিরা দামেস্কের দ্বারপ্রান্তে। এই সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ পদক্ষেপ নিতে অন্য দেশগুলোর প্রতিও আহ্বান জানান রাশিয়ার এ নেতা।

মার্কিন নেতৃত্বাধীন জোটও সিরিয়ায় আইএসের ওপর বিমান হামলা চালাচ্ছে। জোট এর আগে বলেছিল, রাশিয়ার সঙ্গে সহযোগিতা করা হবে না। যুক্তরাজ্য ও তুরস্কসহ বিভিন্ন দেশ আসাদের প্রতি রাশিয়ার সমর্থনকে ভুল বলে উল্লেখ করেছে।

রাশিয়া রোববার জানায়, গত ২৪ ঘন্টায় সিরিয়ায় ৬০ টির বেশি লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হেনেছে রুশ বিমান এবং তাদের প্রধান লক্ষ্য আইএস।

গত ৩০ সেপ্টেম্বর সিরিয়ায় বিমান হামলা শুরু করে রাশিয়া। মস্কোর ভাষ্য, সিরিয়ায় সক্রিয় আইএস ও অন্য জঙ্গিগোষ্ঠীর অবস্থান লক্ষ্য করে তারা হামলা চালাচ্ছে।

পশ্চিমা দেশগুলোর অভিযোগ, মধ্যপন্থী সরকারবিরোধী এবং বেসামরিক লোকজন রুশ বিমান হামলার শিকার হচ্ছে। সিরিয়ায় সামরিক হস্তক্ষেপের জন্য মস্কোকে শিগগিরই মূল্য দেওয়া শুরু করতে হবে বলে হুঁশিয়ার করেছে যুক্তরাষ্ট্র।