জিয়ার মাজার উচ্ছেদের চক্রান্ত ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টি করবে: রিজভী


বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের সমাধিস্থল পরিবর্তনের সরকারি উদ্যোগে দেশে ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টি হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। মঙ্গলবার বিকেলে রাজধানীর নয়াপল্টনে অবস্থিত বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে দলের এ হুঁশিয়ারি দেন তিনি।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, শহীদ জিয়ার মাজারটি আজ কোটি কোটি জনগণের হৃদয়ে জায়গা করে আছে। এ মাজার উচ্ছেদের চক্রান্ত দেশে ভয়াবহ পরিস্থিতির সৃষ্টি করবে। মাজার সরানোর দুঃসাহস দেখালে পরিণতি ভালো হবে না। জনগণ তাদের সব অপচেষ্টাকে জীবন দিয়ে প্রতিহত করবে। জাতীয়তাবাদী শক্তি শেষ রক্তবিন্দু দিয়ে হলেও শহীদ জিয়ার মাজার সরানোর অশুভ পরিকল্পনা প্রতিরোধ করবে।

জিয়াউর রহমানের মাজারটি সংসদ ভবন এলাকা থেকে অনেক দূরে অবস্থিত উল্লেখ করে তিনি বলেন, মাজারের কারণে সংসদ কার্যক্রমের কোনো ক্ষতি হচ্ছে না। সম্পূর্ণ রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় জনবিচ্ছিন্ন এ সরকার মাজারটি অন্যত্র সরানোর অপচেষ্টা করছে। বিএনপির এই নেতা বলেন, একটি অবৈধ ও গণবিচ্ছিন্ন সরকার কখনোই সুষ্ঠুভাবে দেশ পরিচালনা করতে পারে না। ব্যাংক কেলেংকারি, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের রিজার্ভ হ্যাক, তনু হত্যা, বাঁশখালীতে পুলিশ কর্তৃক নির্বিচারে হত্যাকাণ্ড, ইউপি নির্বাচন নিয়ে ক্ষমতাসীন দলের নজীরবিহীন খুনোখুনি ও ভোট ডাকাতি আড়াল করার জন্য আবারও জিয়ার মাজার উচ্ছেদের ইস্যু সামনে নিয়ে আসা হয়েছে।

সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব বলেন, শেখ হাসিনা তার পিতার পথ অনুসরণ করে গণতন্ত্রকে কবর দিয়েছেন। আর শহীদ জিয়া বহুদলীয় গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে এনেছিলেন। প্রধানমন্ত্রী প্রতিহিংসায় আচ্ছন্ন হয়ে আছেন। জিয়া পরিবার তথা জাতীয়তাবাদী শক্তির ওপর রক্তাক্ত আক্রমণ চালিয়েও তার প্রতিহিংসার আগুন প্রশমিত হচ্ছে না। এখন তিনি টার্গেট করেছেন শহীদ জিয়ার মাজারকে।  সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ডা. জেড এম জাহিদ হোসেন, বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক নাজিম উদ্দিন আলম, অর্থনীতি বিষয়ক সম্পাদক আব্দুস সালাম প্রমুখ।