‘শেখ হাসিনাকে বিব্রত করতে তাভেলা হত্যাকাণ্ড’


news_img

শেখ হাসিনাকে বিব্রত করতে তাবেলা হত্যাকাণ্ড এমন মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেছেন, ‘ইতালির নাগরিক তাভেলা সিজার হতাকাণ্ড ‘রাজনৈতিক’। কারণ প্রধানমন্ত্রী যখন জাতিসংঘে দেশের সাফল্য তুলে ধরছেন, বিশ্বনেতাদের কাছে প্রশংসিত হচ্ছেন, পুরস্কৃত হচ্ছেন, তখন একটা গোষ্ঠী শেখ হাসিনাকে বিব্রত করতে এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে।’

বৃহস্পতিবার বিকালে বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ের দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় শ্রমিক লীগের এক প্রস্তুতি সভায় তিনি এ কথা বলেন।

৩ অক্টোবর জাতিসংঘ অধিবেশন শেষে দেশে ফেরার সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দেয়া সংবর্ধনা কর্মসূচি সফল করতে এ প্রস্তুতি সভার আয়োজন করা হয়।

মাহবুব-উল আলম হানিফ তাবেলা সিজার হতাকাণ্ডের সঙ্গে বিএনপি কর্মীদের সম্পৃক্ততার ইঙ্গিত দিয়েছেন।

তিনি বলেন, মির্জা ফখরুল সাহেব, চিন্তার কোনো কারণ নেই। আপনাদের কোন্ কোন কর্মী এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত, তদন্তে বেরিয়ে আসবে।

সভায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুলের দেয়া গতকালের বক্তব্যের সমালোচনা করেন মাহবুব-উল আলম হানিফ।

তিনি বলেন, ‘আপনি বলেছেন, ‘সরকার ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে’। কী চমৎকার অভিযোগ! আপনাদের সফলতা কী ছিল? দেশ ৫ বার দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন হওয়া আর জঙ্গি তালিকাভুক্ত হওয়া? মিথ্যা কথা বলে পার পাওয়ার দিন শেষ। এখন মানুষ ঘরে বসে সব তথ্য জানে।’

এই হত্যাকাণ্ড দেশবিরোধী কোনো ষড়যন্ত্রের অংশ কিনা, খতিয়ে দেখা উচিত বলেও মনে করেন তিনি।

আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আরও বলেন, এই হত্যাকাণ্ডের কিছু আলামত গোয়েন্দা সংস্থার কাছে এসে পৌঁছেছে। সিসি টিভির ফুটেজ, টেলিফোন সংলাপসহ সব আলামত বের করে হত্যাকারীদের শাস্তি দেয়া হবে।

নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ৩ অক্টোবর বিমানবন্দর থেকে গণভবন পর্যন্ত আওয়ামী লীগ, অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীসহ সর্বস্তরের মানুষের ঢল নামিয়ে প্রমাণ করতে হবে বাংলার মানুষ শেখ হাসিনার পক্ষে।

সংগঠনের ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শাখা সভাপতি শামছুল আলম বকুলের সভাপতিত্বে ও উত্তরের সভাপতি দেলোয়ার হোসেন বেপারীর সঞ্চালনায় এতে আরও বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজ, জাতীয় শ্রমিক লীগের কার্যকরী সভাপতি ফজলুল হক মন্টু, সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম প্রমুখ।