ভয়াবহ বন্যা ঝুঁকিতে নিউইয়র্ক!


New-York-Under-Water-537x363

বৈশ্বিক উষ্ণতার প্রভাবে সমুদ্র তলদেশের উচ্চতা বৃদ্ধি ও বার বার বড় ধরনের ঝড়ের ফলে নিউইয়র্ক শহর ভয়াবহ বন্যা ঝুঁকিতে রয়েছে বলে সতর্ক করেছেন গবেষকেরা। এক সমীক্ষায় এই সতর্কবার্তা উঠে এসেছে বলে জানিয়েছে সংবাদ সংস্থা এএফপি।

এএফপি প্রতিবেদনে জানায়, এতে নিউইয়র্কে ২০১২ সালে প্রলয়ংকরী ঝড় স্যান্ডির আঘাতের মতো পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে পারে। বিজ্ঞানীদের ভাষ্য অনুযায়ী, বৈশ্বিক উষ্ণতায় ঘন ঘন ঝড় হচ্ছে। সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বাড়ছে। এ কারণে নিউইয়র্কে বন্যার ঝুঁকি বাড়ছে।

মঙ্গলবার প্রসিডিংস অব দ্য আমেরিকান একাডেমি অব সাইন্সেস (পিএনএএস) সাময়িকীতে ওই গবেষণা বিষয়ক নিবন্ধ প্রকাশিত হয়। গবেষণার ফলাফলের ভিত্তিতে গবেষকেরা সতর্ক করেন যে, আমেরিকার উত্তর-পূর্ব উপকূলে বার বার বড় ধরনের ঝড় আঘাত হানতে পারে। আগে যা ৫০০ বছর পর পর হতো, ভবিষ্যতে তা ২৫ বছর পর পর হতে পারে। এ জন্য বিজ্ঞানীরা মানুষের কর্মকান্ডের কারণে গ্রিন হাউস গ্যাস নির্গমন থেকে সৃষ্ট বৈশ্বিক উষ্ণতাকে দায়ী করেছেন।

২০১২ সালের ৩০ অক্টোবর প্রলয়ংকরী ঘূর্ণিঝড় স্যান্ডির আঘাতে নিউইয়র্ক ও নিউ জার্সিতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। এতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। নিহত হয় ১৩২ জন।
৮৫০ থেকে ১৮০০ সাল পর্যন্ত উত্তর আটলান্টিকে হারিকেন সংঘটনের হার এবং এর শক্তি পর্যবেক্ষণ করেছেন গবেষকেরা। এরপর তারা ওই ফলের সঙ্গে ১৯৭০ থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত তথ্যের তুলনা করেন।

শীর্ষ গবেষক আন্দ্রা রিডের ভাষ্য, তারা তাদের গবেষণায় আটলান্টিক উপকূলে বিশেষ করে নিউইয়র্ক শহরে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব দেখতে চেয়েছেন।
গবেষকেরা বলেন, ২০১২ সালে স্যান্ডির প্রভাবে সৃষ্ট বন্যার পেছনে বেশ কিছু কারণ কাজ করেছে। এর মধ্যে রয়েছে সমুদ্রের তলদেশের উচ্চতা বৃদ্ধি, প্রবল জোয়ার, বিশেষ করে ওই ঝড়ের সামগ্রিক আকৃতি।

আগস্টের শেষের দিকে নাসার বিজ্ঞানীরা জানান, বৈশ্বিক উষ্ণতার প্রভাবে বিশ্বব্যাপী সমুদ্র তলদেশের উচ্চতা ক্রমেই বৃদ্ধি পাচ্ছে। স্যাটেলাইট থেকে প্রাপ্ত সর্বশেষ উপাত্ত থেকে বোঝা যাচ্ছে আগামী ১শ’ থেকে ২শ’ বছরের মধ্যে সমুদ্র তলদেশের উচ্চতা তিন ফুট বা এর বেশী বৃদ্ধি পেতে পারে।