মীর কাসেমের আপিলের রায় ২ মার্চের পরিবর্তে ৮ মার্চ


f

একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধে ফাঁসির দণ্ডাদেশপ্রাপ্ত মীর কাসেম আলীর আপিলের চূড়ান্ত রায় ২ মার্চের পরিবর্তে আগামী ৮ মার্চ দিন রেখেছেন আদালত। বুধবার দুপুরে এ মামলায় চূড়ান্ত শুনানি শেষে প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে ৫ সদস্যের বেঞ্চ আগামী ২ মার্চ আপিলের রায় ঘোষণা দেন। কিন্তু কিছু পরেই প্রধান বিচারপতি জানান, তিনি ২ মার্চ দেশের বাইরে থাকবেন। তাই ওই দিনে এ মামলার চূড়ান্ত রায় দেওয়া সম্ভব হবে না। তাই আদালত আগামী ৮ মার্চ এ মামলার রায়ের দিন পুনর্নির্ধারণ করেন বলে জানান মীর কাসেম আলীর আইনজীবী ব্যারিস্টার তানভীর আল আমিন। বুধবার সকাল ৯টার কিছু পরে মীর কাসেম আলীর আপিলের শুনানি সপ্তম দিনের মতো শুরু হয়। প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে বেঞ্চের অন্য সদস্যরা হলেন বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন, বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী, বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার ও বিচারপতি বজলুর রহমান। এদিন, আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। আসামি পক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেন তার আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন। প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালের ২ নভেম্বর চেয়ারম্যান বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বাধীন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২ মীর কাসেমকে মৃত্যুদণ্ডের রায় প্রদান করেন। মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের ১৪টি অভিযোগের মধ্যে কিশোর মুক্তিযোদ্ধা জসিম উদ্দিন আহমেদসহ আটজনকে হত্যায় সংশ্লিষ্টতা প্রমাণিত হওয়ায় ইসলামী ছাত্রশিবিরের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি কাসেমের ফাঁসির রায় আসে। এরপর ওই বছরের ৩০ নভেম্বর ট্রাইব্যুনালের দেওয়া মৃত্যুদণ্ড থেকে বেকসুর খালাস চেয়ে আপিল করেন মীর কাসেমের আইনজীবীরা।