৩৫তম বিসিএস: দ্বিতীয় দফার মৌখিক পরীক্ষার সময়সূচি প্রকাশ


a

দ্বিতীয় দফায় পয়ত্রিশতম বিসিএসের মৌখিক পরীক্ষার সময়সূচি প্রকাশ করেছে সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি)। আগামী ৬ থেকে ২১ মার্চ সাধারণ ও কারিগরি/পেশাগত ক্যাডারের প্রার্থীদের মৌখিক পরীক্ষা নেওয়া হবে। বুধবার কমিশনের ওয়েবসাইটে এই সূচি প্রকাশ করে বলা হয়, শেরেবাংলা নগরে পিএসসির প্রধান কার্যালয়ে নির্ধারিত দিনে সকাল ১০টা থেকে মৌখিক পরীক্ষা শুরু হবে। গত ১৩ জানুয়ারি ৩৫তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়, যাতে উত্তীর্ণ হন ৬ হাজার ৮৮ জন চাকরিপ্রত্যাশী। এরপর গত ৩১ জানুয়ারি প্রথম দফার মৌখিক পরীক্ষা শুরু হয়, যা ৩ মার্চ পর্যন্ত চলবে। পিএসসি বলছে, মৌখিক পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার জন্য কমিশন থেকে ডাকযোগে প্রার্থীদের কোনো সাক্ষাৎকারপত্র পাঠানো হচ্ছে না। কমিশনের ওয়েবসাইট থেকে পিএসসির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক স্বাক্ষরিত সাক্ষাৎকারপত্র ডাউনলোড করে তা যথাযথভাবে পূরণ করে নির্ধারিত দিনে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ মৌখিক পরীক্ষা বোর্ডে উপস্থিত হতে হবে। মুক্তিযোদ্ধা কোটার প্রার্থীদের বিপিএসসি ফরম-২ এর সঙ্গে দাখিল করা মুক্তিযোদ্ধা সনদের দুটি সত্যায়িত কপি, মুক্তিযোদ্ধা সনদধারীর জন্ম তারিখ সম্বলিত এসএসসি/সমমানের সনদ, এসএসসি পাস না হলে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানের সনদ বা জন্ম তারিখ সম্বলিত প্রামাণিক দলিল, মুক্তিবার্তা/গেজেটের সত্যায়িত দুই কপিসহ এসব কাগজের দুই সেট মৌখিক পরীক্ষা বোর্ডে দাখিল করতে হবে। ৩৫তম বিসিএসের মাধ্যমে বিভিন্ন ক্যাডারে এক হাজার ৮০৩টি পদে নিয়োগ দেওয়ার কথা রয়েছে। ২০১৪ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর ৩৫তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর গতবছর ৬ মার্চ ২ লাখ ৪৪ হাজার ১০৭ জন চাকরিপ্রার্থী প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় অংশ নেন। ৩৪তম বিসিএসে কারিগরি ও পেশাগত ক্যাডারে কোটার বিপরীতে ৬৭২টি শূন্যপদেও ৩৫তম বিসিএস থেকে নিয়োগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে মন্ত্রিসভায়। কোটার বিপরীতে কারিগরি ও পেশাগত ক্যাডারে যোগ্য লোক না পাওয়া গেলে এ বিসিএসেও কোটা শিথিল থাকবে।