চার বছরের শিশুর যাবজ্জীবন কারাদণ্ড!


aaaa

হত্যার দায়ে চার বছরের এক শিশুকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে মিশরের এক আদলাত। যে অপরাধে শিশুটিকে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে সেটি সংঘটিত হওয়ার সময় তার বয়স ছিল এক বছর। তবে এটাকে ভুল বলে স্বীকার করেছে সেনাবাহিনী। সেনাবাহিনীর মুখপাত্র কর্নেল মোহাম্মেদ সামির বলেন, ১৬ বছরের এক বাচ্চাকে শাস্তি দিতে গিয়ে ভুলে ওই বাচ্চাকে শাস্তি দেয় আদালত। আহমেদ মনসুর কারমি নামের ওই শিশুর বিরুদ্ধে হত্যার চারটি, হত্যাচেষ্টার আটটি, সম্পদ নষ্টের একটি এবং সেনা ও পুলিশ কর্মকর্তাদের হুমকি দেওয়ার অভিযোগ আনা হয়েছে। আহমেদ হচ্ছে এসব ঘটনায় করা মামলার ১১৫ আসামির একজন। তাদেরও একই সাজা হয়েছে। আহমেদের আইনজীবী ফয়সাল আল-সাইদ বলেন, ভুলে এ মামলায় শিশুটির নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়। কিন্তু আদালত আহমেদের জন্মসনদটি বিচারকের কাছে দেননি। তার জন্ম ২০১২ সালের সেপ্টেম্বরে। ফয়সাল বলেন, ‘দেশটির নিরাপত্তা বাহিনী আসামিদের নামের তালিকায় আহমেদের নাম অন্তর্ভুক্ত করার পর তাদের কাছে শিশুদের জন্মসনদ দেওয়া হয়। কিন্তু এরই মধ্যে মামলাটি সামরিক আদালতে স্থানান্তরিত হয়। শিশুটির অনুপস্থিতেই আদালত শুনানি করে রায় ঘোষণা করেন। এতেই প্রমাণিত হয়, বিচারক মামলার নথি পড়ে দেখেননি।’ আরেকজন আইনজীবী বলেন, এর মধ্য দিয়ে বোঝা যায় মিশরে কোনো ন্যায়বিচার নেই। তিনি বলেন, ‘মিশরে বিচারের মাপকাঠি পাল্টানো যায় না। এখানে ন্যায়বিচার নেই। এখানে যুক্তি বলতে কিছু নেই। যুক্তির মৃত্যু হয়েছে অনেক আগেই। মিশর উন্মত্ত হয়ে গেছে। একদল উন্মত্ত শাসন করছে দেশটি।