বদলে গেছে ‘অবহেলিত জনপদ’ কোটালীপাড়া


kutalipara

দশ বছর আগে গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ার মানুষের দুর্ভোগ ছিল চরমে। অবহেলিত জনপদ হিসেবে পরিচিত ওই এলাকায় রাস্তাঘাট- ব্রীজ- কালভাট না থাকায় এলাকার মানুষের যাতায়াতের একমাত্র বাহক ছিলো কলার ভেলা-তালের ডিঙি আর নৌকা। যোগাযোগ এবং বিদ্যুৎ ব্যবস্থা ভালো না থাকায় এলাকায় শিক্ষার হারও ছিলো একেবারেই কম। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর ওই এলাকায় রাস্তা-ঘাট ব্রিজ-কালভার্ট নির্মাণ এবং বিদ্যুৎ ব্যবস্থাসহ বিভিন্ন উন্নয়নের ছোয়া লাগে।
গত কয়েক বছরে গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় ৪ শ’র ও বেশি নতুন রাস্তা নির্মাণ করা হয়েছে। পাশাপাশি জনগনের দুঃখ-দুর্দশা কমাতে ব্রিজ-কালভার্টসহ বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ শুরু হয়েছে যা এখনও অব্যাহত রয়েছে।

এলাকাবাসী জানিয়েছে, দশ বছর আগে সীমাহীন দুর্ভোগে ছিল কোটালীপাড়াবাসীর। এ এলাকার মানুষের এক এলাকা থেকে অন্য এলাকায় যেতে হলে কলার ভেলা-তালের ডিঙি ও নৌকাই ছিল একমাত্র বাহক। চরম দুর্ভোগে থাকা কোটালীপাড়ার মানুষের ভাগ্য যেন বিজলী চমকানোর মতো বদলে গেছে। এখন আর তাদের কলার ভেলা-তালের ডিঙি ও নৌকায় করে যাতায়ত করতে হয়না।
ভ্যান-রিক্সা অথবা গাড়িতে করে ঘুরতে পারছে গোটা উপজেলা। বাড়ি বাড়ি পৌছে দিয়েছে বিদ্যুৎ। কয়েক বছরেই কোটালীপাড়া পৌরসভাসহ উপজেলার বিভিন্নস্থানে ৪ শ’র বেশি নতুন রাস্তা তৈরি, রাস্তা মেরামত, ব্রিজ-কালভার্ট, মসজিদ, মাদ্রাসা, পাবলিক টয়লেটসহ বিভিন্নস্থানে ঘাট তৈরি করে দেওয়া হয়েছে। কোটালীপাড়ায় ভালো কোন মার্কেট ও বাস-স্ট্যান্ড না থাকায় নতুন করে নির্মাণ করা হচ্ছে পৌর মার্কেট, বাস্ট্যান্ড ও কয়েকটি ব্রিজ-কালভার্টসহ আরও অনেক কিছু। আলোর সল্পতা কমাতে ১১ বর্গ কিলোমিটার পৌর এলাকায় দেওয়া হয়েছে স্টিট লাইট, রয়েছে প্রতিটি বাড়িতে সাপ্লাই পানির লাইনও।
কোটালীপাড়া পৌরসভার মেয়র, এইচ, এম, অহিদুল ইসলাম বলেন, সারা দেশের উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় বঙ্গকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে গত দশ বছর ধরে কোটালীপাড়ার মানুষের দুর্ভোগ কমাতে নতুন নতুন রাস্তা নির্মাণ, রাস্তা মেরামত, ব্রিজ-কালভার্ট ও বিভিন্নস্থানে ঘাট নির্মাণ করে দেওয়া হয়েছে।
এ ছাড়া কোটালীপাড়ায় কোন বাস-স্ট্যান্ড ও ভালো কোন মার্কেট না থাকায় সড়ক দুর্ঘটনা কমাতে একটি উন্নত বাস-স্ট্যান্ড ও একটি অাধুনিক পৌর মার্কেটের কাজ শুরু করেছে কোটালীপাড়া পৌরসভা।