আগাম নির্বাচন থেকে সরে গণতন্ত্রের আলোচনায় বিএনপি


বিএনপি চেয়ারপারন খালেদা জিয়া ও মার্কিন রাষ্ট্রদূতের দেড় ঘণ্টাব্যাপী বৈঠকে আগাম নির্বাচন নয়, আলোচনায় স্থান পেয়েছে ‘গণতন্ত্র’ আর সর্বশেষ রাজনৈতিক পরিস্থিতি। সোমবার ঢাকায় খালেদা জিয়ার সঙ্গে এক বৈঠক শেষে মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্সিয়া বার্নিকাট আর বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মঈন খানের বক্তব্যে এমন তথ্য উঠে এসেছে। (সোমবার) সন্ধ্যা ৬টার দিকে খালেদা জিয়ার গুলশানের বাসভবন ফিরোজায় বৈঠক করেন ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শিয়া ব্লুম বার্নিকাট। টানা দেড় ঘণ্টা চলে এ বৈঠক। বার্নিকাট বলেন, ‘বাংলাদেশ সব সময় গণতন্ত্রের জন্য অঙ্গীকারাবদ্ধ। আর এই অঙ্গীকার তাদের উন্নয়নের পথে বিশেষ ভূমিকা রাখছে।’

বৈঠকের পর বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. মঈন খান সাংবাদিকদের বলেন, ‘অতীত থেকে শিক্ষা নিয়ে সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে বাংলাদেশকে গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র হিসেবে গড়তে হবে- বৈঠকে এ নিয়েই আলোচনা হয়েছে।’ অতীত থেকে শিক্ষা নেয়া বলতে কী বোঝালেন- সাংবাদিকদের এ প্রশ্নের জবাবে মঈন খান বলেন, ‘গণতন্ত্র’। তিনি বলেন, ‘মার্কিন রাষ্ট্রদূত দেখা করতে এসেছিলেন। দেড় ঘণ্টা বৈঠক হয়েছে। রাজনীতি, সমাজনীতি, অর্থনীতি, আইনশৃঙ্খলাসহ রাজনীতির সর্বশেষ পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। বিশ্বায়নের রাজনীতিতে বাংলাদেশের গুরুত্ব কম না। শক্তিশালী রাষ্ট্রগুলো সারা বিশ্বের খোঁজখবর রাখে, সারাবিশ্বের সার্বিক বিষয় নিয়ে তারা চিন্তা করে।’

মধ্যবর্তী নির্বাচন নিয়ে কোনো আলোচনা হয়েছে কি না জানতে চাইলে মঈন খান বলেন, ‘নির্বাচন দেবে কি না এটা সরকারের বিষয়। আমরা ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করেছি। আমরা দ্রুত একটি সুষ্ঠু নির্বাচন চাই।’ একাত্তরে শহীদের সংখ্যা বিতর্কের জেরে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদোহ মামলার প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি তো বলেছি, রাজনীতির সর্বশেষ পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হয়েছে।’ বিএনপির নেতারা জানাচ্ছেন, বৈঠকে খালেদা জিয়া এবং মার্কিন দূত দেশের বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে প্রায় দুই ঘণ্টা কথাবার্তা বলেন। বৈঠকে খালেদা জিয়ার সাথে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আবদুল মঈন খান এবং চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা রিয়াজ রহমান ও সাবিহ উদ্দিন আহমেদ।