প্রবল তুষারঝড় ও বন্যায় যুক্তরাষ্ট্রের আটলান্টিক সিটিতে জনজীবন বিপন্ন


zxcz

যুক্তরাষ্ট্রের আটলান্টিক সিটিসহ পার্শ্ববর্তী সিটিগুলো তুষারঝড় এবং বন্যার কবলে পড়ে লন্ডভন্ড হয়ে গেছে জীবনযাত্রা।

প্রচন্ড তুষারপাতের সঙ্গে বইছে হাড় কাঁপানো ঠান্ডা বাতাস এবং উপকূলীয় বন্যা।  ইতোমধ্যে আটলান্টিক কাউন্টির প্রায় ত্রিশ হাজার অধিবাসী বসবাস করছেন কোন রকম বিদ্যুৎ ছাড়াই। নিউজার্সীর গর্ভনর ক্রিসক্রিস্টি গত শুক্রবার থেকে স্টেট ইমারজেন্সী ঘোষনা করেছেন।

আটলান্টিক সিটির অধিবাসীদেরকে সিআরডিয়ের অধিনস্থ ওয়েব গ্যারেজে ফ্রি পার্কিয়ের অনুমতি দেয়া হয়েছে।শুক্রবার সকাল থেকেই আটলান্টিক সিটি ইলিকট্রিক কোম্পানী  বিদ্যুতের ব্যাপারে সর্তকবাণী দিয়ে আসছিল। এখনও পর্যন্ত কোন  প্রাণহানির খবর পাওয়া যায়নি। আজ রোববার পর্যন্ত এ পরিস্থিতি থাকতে পারে বলে স্থানীয় আবহাওয়া অফিস থেকে সতর্কবাণী দেয়া হয়েছে।

সিটির ইমারজেন্সি ম্যানেজম্যান্টের সাথে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা লাখ লাখ লোককে নিরাপদ আশ্রয়ে থাকার আহবান জানিয়েছেন এবং প্রয়োজনে যোগাযোগের অনুরোধ করেছেন। যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে এবার সবচেয়ে ভয়াবহ তুষার ঝড়ের সতর্কবাণী দেওয়া হয়েছে।

স্থানীয় বিভিন্ন খবরে বলা হয়েছে, তুষার ঝড়ে এবং প্রচন্ড জোয়ারের কারনে আশপাশের এলাকায় দুই ফুটেরও বেশি (প্রায় ৬০ সেন্টিমিটার) পানিতে নিমজ্জিত হয়ে পড়ায় জনজীবন অচল হয়ে পড়েছে।

সিটির সবচেয়ে জনবহুল বাংলাদেশী অধ্যুষিত এলাকা জর্জিয়া থেকে আইওয়া এভিনিউ পর্যন্ত দেড় ফুট পানির নিচে। এসকল এলাকার অধিকাংশ বাড়িতে ইতোমধ্যে পানি ঢুকে পড়েছে।
আটলান্টিক সিটির মেয়র ডন গার্ডিয়ান এক বার্তায় স্থানীয়দের নিজ নিজ বাড়িতে অবস্থান করার অনুরোধ করেছেন।
তিনি বলেন, ‘যেহেতু সামনে বড় ধরনের তুষার ঝড় এবং বন্যা হতে পারে সুতরাং জরুরী প্রয়োজন ছাড়া কেউ বাহিরে বের হবেন না।’ তিনি গর্ভনর ক্রিসক্রিস্টি সিটি অফিসিয়াল এবং আটলান্টিক কাউন্টির ইমাজেন্সী ম্যানেজমেন্টের সাথে ফোন করে কয়েকবার খোজ খবর নিয়েছেন বলেও জানিয়েছেন।
নিউজার্সী এবং ফিলাডেলফিয়ায় ইতোমধ্যে কয়েক হাজার ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে। ঝড়ের পূর্ব প্রস্তুতি হিসেবে অনেকে প্রয়োজনীয় সামগ্রী কিনে মজুত করায় স্যম্স ক্লাব, সফরাইট, একমি এবং মুদির দোকানগুলো প্রায় খালি হয়ে গেছে।বিশেষ করে স্থানীয় কোন ষ্টোরে দুধ পাওয়া যাচ্ছে না।
তুষার ঝড়ে কয়েক শত কোটি ডলারের বেশি ক্ষতি হতে পারে।আটলান্টিক সিটিসহ নিকটবর্তী সব সিটিতে সকল স্কুল ও সরকারি অফিস বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। গণপরিবহনগুলো শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে সোমবার সকাল পর্যন্ত বন্ধ রাখার ঘোষণা দেয়া হয়েছে।
এদিকে পুরো যুক্তরাষ্ট্র জুড়ে অন্তত ১৯ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম রয়টার্স। আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, নিউইয়র্ক ও ওয়াশিংটনের ইতিহাসে এটি তৃতীয় বৃহত্তম তুষারঝড়।