টাইগ্রের স্বাধীনতাকামীদের নতুন আল্টিমেটাম


উত্তরাঞ্চলীয় টাইগ্রে অঞ্চলের স্বাধীনতাকামীদের আত্মসমর্পণ করতে নতুন সময়সীমা বেঁধে দিয়েছেন ইথিওপিয়ার প্রধানমন্ত্রী আবি আহমেদ। তিন দিনের এই সময়সীমা শেষ হওয়ার পর তাদের নিয়ন্ত্রিত আঞ্চলিক রাজধানী মেকেল্লেতে সেনা অভিযান শুরু হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন তিনি। রবিবার সন্ধ্যায় এক টুইট বার্তায় এই আল্টিমেটাম দেওয়া হলেও তাৎক্ষণিকভাবে কোনও প্রতিক্রিয়া জানায়নি স্বাধীনতাকামী গোষ্ঠী টাইগ্রে পিপলস লিবারেশন ফ্রন্ট পার্টির (টিপিএলএফ)। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা গেছে।

গত দুই সপ্তাহ ধরে ইথিওপিয়ার সরকারি বাহিনী ও স্বাধীনতাকামী টাইগ্রে পিপলস লিবারেশন ফ্রন্ট পার্টির (টিপিএলএফ) মধ্যে লড়াই চলছে। ইতোমধ্যে এই লড়াইয়ে এক হাজারের বেশি মানুষ নিহত হয়েছে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এছাড়া অঞ্চলটি থেকে পালিয়ে প্রতিবেশী দেশ সুদানে শরণার্থী হিসেবে আশ্রয় নিয়েছে হাজার হাজার মানুষ। ওই অঞ্চলের এক সেনা ঘাঁটিতে হামলার জন্য প্রধানমন্ত্রী আবি আহমেদ টিপিএলএফ বাহিনীকে দায়ী করে তাদের বিরুদ্ধে অভিযানের নির্দেশ দিলে এই লড়াই শুরু হয়।

গত শুক্রবার টাইগ্রে অঞ্চলের ঐতিহাসিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ দুটি শহর আক্সাম ও আদুয়া দখলের দাবি করে ইথিওপিয়ার সরকারি বাহিনী। পরে অঞ্চলটির রাজধানী মেকেল্লে থেকে ১২০ কিলোমিটার উত্তরের শহর আদিগ্রাতও দখলে নেয় তারা। রবিবার ইথিওপিয়ার সেনা মুখপাত্র জানান, তারা ট্যাংক নিয়ে মেকেল্লে ঘিরে ফেলার পরিকল্পনা করছে। বেসামরিক নাগরিকদের নিজেদের রক্ষার পরামর্শ দিয়ে সেনা মুখপাত্র জানান, তারা যেকোনও সময়ে হামলা শুরু করতে পারে।

সেনা মুখপাত্রের বিবৃতির কয়েক ঘণ্টার মধ্যে এক টুইট বার্তায় স্বাধীনতাকামী টিপিএলএফ বাহিনীর উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী আবি আহমেদ বলেন, ’৭২ ঘণ্টার মধ্যে শান্তিপূর্ণভাবে আত্মসমর্পণের আহ্বান জানাচ্ছি, স্বীকার করছি তোমাদের ফিরে আসার অন্য কোনও উপায় নেই।’

এদিকে বেসামরিক মানুষের সুরক্ষা নিশ্চিত করতে ইথিওপিয়ার প্রতি সোমবার আহ্বান জানিয়েছে জাতিসংঘ। দেশটিতে নিযুক্ত জাতিসংঘের মানবিক সমন্বয়ক ক্যাথেরিন সোজি মেকেল্লের ৫ লাখ ২৫ হাজারের বেশি বেসামরিক মানুষের পাশাপাশি ত্রাণ কর্মীদের নিরাপত্তা ও সুরক্ষার আহ্বান জানান।