চোট ও বাজে শুরু পেছনে ফেলে সেমিতে জোকোভিচ


ঘাড়ে টেপ লাগিয়ে নামলেন কোর্টে। এরপর বারকয়েক বাঁ বাইসেপে ম্যাসেজ করতে হলো। চোট শঙ্কার সঙ্গে হারও চোখ রাঙাতে শুরু করে প্রথম সেট হেরে গেলে। তবে তিনি নোভাক জোকোভিচ। বর্তমান টেনিসের এক নম্বর খেলোয়াড়। চোট ও বাজে শুরু পেছনে ফেলে ঘুরে দাঁড়ানো জয়ে নিশ্চিত ঠিকই করলেন ফ্রেঞ্চ ওপেনের সেমিফাইনাল।

রোলাঁ গাঁরোর কোয়ার্টার ফাইনালে স্প্যানিশ প্রতিদ্বন্দ্বী পাবলো কারেনো বুস্তাকে হারিয়েছেন তিনি ৪-৬, ৬-২, ৬-৩, ৬-৪ গেমে। এটি ছিল আবার এবারের ইউএস ওপেনের চতুর্থ রাউন্ডের রি-ম্যাচ। গত সেপ্টেম্বরের যে ম্যাচটিতে লাইন আম্পায়ারের গায়ে বল মেরে ডিসকোয়ালিফাই হয়েছিলেন জোকোভিচ।

 বুস্তার বিপক্ষে কোর্টে নামার আগে ইউএস ওপেনের ওই ঘটনা জোকোভিচের সামনে না এসে পারেই না। যদিও কোর্টে নেমে নিজের ফিটনেসে বেশি ধ্যান দিতে হয়েছে সার্বিয়ান তারকাকে। শুরুতে বেশ ভুগতেও হয়েছে। লড়াই করে প্রথম সেট হারেন ৪-৬ গেমে।

পরের সেট থেকে ছন্দে ফিরে জোকোভিচ পৌঁছে যান সেমিফাইনালে। শেষ চারের লড়াইয়ে তার প্রতিপক্ষ গ্রিসের ২২ বছর বয়সী তরুণ স্তেফানোস সিসিপাস।

কোয়ার্টার ফাইনালের লড়াই সহজ ছিল না জোকোভিচের জন্য। ঘাম ঝরানো জয়ের পর তিনি বলেছেন, ‘কোর্টে আসার পর মোটেও ভালো অনুভব করিনি। ওয়ার্ম-আপের সময় অনেক কিছু হচ্ছিল। তবে ম্যাচ শুরু হওয়ার পর সময় যত গড়িয়েছে, আমি তত ভালো বোধ করেছি, ব্যথাও অতটা ছিল না।’

ফাইনালে রাফায়েল নাদাল-জোকোভিচ লড়াইয়ের প্রত্যাশা। সেই অনুযায়ী এগিয়ে চলছেন টেনিসের গ্রেট দুই খেলোয়াড়। রোলাঁ গাঁরোর ১২বারের চ্যাম্পিয়ন নাদাল ২০তম গ্র্যান্ড স্লামের খোঁজে, আর জোকোভিচের মিশন ১৭তম শিরোপার। সার্বিয়ান তারকা ফ্রেঞ্চ ওপেন জিততে পারলে নতুন এক রেকর্ডও গড়বেন। টেনিসের উন্মুক্ত যুগে প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে চার গ্র্যান্ড স্লাম জিতবেন দুইবার করে।