বিস্ময়কর গোলে বায়ার্নের ঘরে আরেকটি শিরোপা


২ গোলে পিছিয়ে পড়েও খেলায় ফিরলো বরুসিয়া ডর্টমুন্ড। ম্যাচ অতিরিক্ত সময়ে যাওয়ার সম্ভাবনাও জেগেছিল। ঠিক তখনই বিস্ময়কর এক গোলে বায়ার্ন মিউনিখের শিরোপা উৎসবের আরেকটি উপলক্ষ এনে দিলেন ইয়োশুয়া কিমিচ। শরীরের ভারসাম্য না রাখতে পেরে জার্মান মিডফিল্ডার পড়ে যাওয়ার সময় বলের ওপর পা লাগলে জড়িয়ে যায় জালে। তাতে ৩-২ গোলের জয়ে জার্মান সুপার কাপের শিরোপা ঘরে তুলেছে বায়ার্ন।

আলিয়েঞ্জ অ্যারেনায় বারুদে উত্তেজনার এক ম্যাচ মঞ্চায়িত হয়েছে। গত মৌসুমে ত্রিমুকুট জেতা বায়ার্ন নেমেছিল আরেকটি শিরোপার সন্ধানে। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ডর্টমুন্ডের বিপক্ষে ছিল নতুন মৌসুমের সবচেয়ে কঠিন লড়াই। এর ওপর ছিল আবার হারের ধাক্কা কাটিয়ে ছন্দে ফেরার মিশনও। হফেনহেইমের বিপক্ষে আগের ম্যাচে হেরে টানা ৩২ ম্যাচ অজেয় থাকার পথে ছেদ পড়েছিল ব্যাভারিয়ানদের। সব হিসাব মিটিয়ে আবারও হাসি ফুটেছে জার্মান চ্যাম্পিয়নদের ঠোঁটে।

আর এই জয়ের নায়ক কিমিচ। ৮২ মিনিটে তার বিস্ময়কর গোলেই শিরোপা উদযাপন করেছে জার্মান চ্যাম্পিয়নরা। ডর্টমুন্ডের বিপক্ষে ম্যাচটি তখন ২-২ গোলে সমতায়, মাঝমাঠ থেকে বল কেড়ে নিয়ে কিমিচ রবার্ত লেভানদোভস্কির সঙ্গে পাস দেওয়া-নেওয়া করলেন। পোলিশ স্ট্রাইকারের ক্রস বক্সের ভেতর থেকে জার্মান মিডফিল্ডার গোলমুখে শট নিয়েও প্রতিহত হয় ডর্টমুন্ড গোলকিপারের হাতে, যদিও তিনি বল হাতে জমাতে পারেননি। ওই মুহূর্তেই প্রতিপক্ষের ডিফেন্ডারের ট্যাকলে ভারসাম্য হারিয়ে মাঠে পড়ে যান কিমিচ। পড়ার মুহূর্তে বলে তার বাঁ পা লাগলে জড়িয়ে যায় জালে।

এর আগে কিন্তু সহজ জয়ের ছকই তৈরি করেছিল বায়ার্ন। ৩২ মিনিটের মধ্যে তারা এগিয়ে যায় ২-০ গোলে। কোরেন্টিন তোলিসোর পর জাল খুঁজে পান টমাস মুলার। তবে আশা হারায়নি ডর্টমুন্ড। জুলিয়ান ব্রান্ডটের পর আর্লিং হলান্ড লক্ষ্যভেদ করলে ৫৫ মিনিটে সমতায় ফেরে ডর্টমুন্ড। তবে হার ঠেকাতে পারেনি। দুর্ভাগ্য ও বিস্ময়কর গোলে হতাশা নিয়ে ছাড়তে হয় মাঠ।

এ নিয়ে এক সপ্তাহের মধ্যে দুইবার শিরোপা উদযাপন করলো বায়ার্ন। গত বৃহস্পতিবার সেভিয়াকে হারিয়ে জিতেছিল উয়েফা সুপার কাপের শিরোপা। গত মৌসুমে ট্রেবল জেতার পর এবারের দুই শিরোপা- বায়ার্নে উৎসব চলছেই!