মেসি বার্সায় থাকলে সুয়ারেজও যাবেন না?


মেসি-বার্সেলোনা লড়াইয়ে নতুন মোড়। এখন নাকি মেসিই নমনীয়, আরও একবছর ন্যু ক্যাম্পে থাকার চিন্তা-ভাবনা করছেন তিনি। শেষ পর্যন্ত যদি থেকেই যান আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড, তাহলে লুইস সুয়ারেজকে থামানোর চেষ্টা করবেন তিনি। সেক্ষেত্রে জুভেন্টাসে যাওয়ার যে আলোচনা চলছে, সেখান থেকে উরুগুইয়ান স্ট্রাইকার ফিরে আসতে পারেন। ইতালির জনপ্রিয় দুই দৈনিক লা গাজেত্তা দেল্লো স্পোর্ত ও কুরিয়ের দেল্লা সেরা ছেপেছে এমন খবরই।

মেসির সঙ্গে সুয়ারেজের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক শুধু মাঠে নয়, ব্যক্তিগত জীবনে বরং আরও বেশি গাঢ়। অবকাশ যাপন কিংবা বাইরে কোথাও খাওয়ার জন্য গেলেও তারা পরিবার নিয়ে যান একসঙ্গে। বার্সেলোনায় তারা প্রতিবেশীও। এই অবস্থায় তিনি সিদ্ধান্ত পাল্টে ন্যু ক্যাম্পে আরও একবছর থাকতে চাইলে সুয়ারেজও আটকাতে চাইবেন।

ইতালিয়ান সংবাদমাধ্যম দুটির খবর, বার্সেলোনার সঙ্গে সুয়ারেজের চুক্তি ২০২১ সাল পর্যন্ত, মেসির চুক্তিও শেষ হবে একই সময়ে। তাই আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড থাকার সিদ্ধান্ত নিয়ে সুয়ারেজও বুঝিয়ে আরও একবছর খেলে যেতে বলবেন বার্সেলোনায়।

কিকে সেতিয়েন বরখাস্ত হওয়ার পর রোনাল্ড কোম্যান দায়িত্ব নিয়ে সবার প্রথমে ‘না’ বলেছেন সুয়ারেজকে। উরুগুইয়ান স্ট্রাইকারকে স্পষ্ট জানিয়ে দেন, সামনের মৌসুমের পরিকল্পনায় তিনি নেই। এরপর থেকে মেসির বার্সা ছাড়ার সঙ্গে সুয়ারেজের ভবিষ্যৎ নিয়ে চলছে আলোচনা। সাবেক লিভারপুল স্ট্রাইকারের সঙ্গে কথা-বার্তা হচ্ছে জুভেন্টাসের।

এর আগে লা গাজেত্তা দেল্লো স্পোর্তের খবর ছিল, তুরিনের ক্লাবের সঙ্গে চুক্তিতে বছরে ১০ মিলিয়ন ইউরো পাবেন সুয়ারেজ। তবে পাসপোর্ট সংক্রান্ত ঝামেলায় জুভেন্টাসের সঙ্গে চুক্তির আনুষ্ঠানিকতা সারতে পারছেন না তিনি। লা লিগায় তিনি ইউরোপিয়ান কোটার খেলোয়াড় হিসেবেই খেলেছেন স্ত্রীর সৌজন্যে। তার স্ত্রী সোফিয়া বালবি ইতালিয়ান পাসপোর্টধারী। তবে সিরি ‘আ’তে স্ত্রীর পাসপোর্ট মূল্যায়ন করা হয় না।

এই অবস্থায় উরুগুইয়ান তারকাকে ছোট্ট একটি পরীক্ষা দিতে হবে। সেই পরীক্ষায় উতরে গেলেই হয়ে যাবেন ‘কমিউনিটি সদস্য’। তখন আর জুভেন্টাসের সঙ্গে চুক্তি সারতে কোনও ঝামেলা থাকবে না। কিন্তু এর আগেই ইতালিয়ান সংবাদমাধ্যমের খবর, ন্যু ক্যাম্পে থেকেও যেতে পারেন সুয়ারেজ!