মানসম্মত নাগরিক সেবায় হরিরামপুরে বিট পুলিশিং কার্যক্রম শুরু


শাকিল বিশ্বাস হরিরামপুর (মানিকগঞ্জ):-
মানিকগঞ্জের হরিরামপুর থানায় শুরু হয়েছে বিট পুলিশিং কার্যক্রম। অপরাধ নির্মূল ও মানুষের ছোটখাট সমস্যার সমাধান করা, আইন শৃঙ্খলারক্ষা ও পুলিশকে মানুষের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে যাওয়ার লক্ষে এই বিট পুলিশিং কার্যক্রম চালু করা হয়েছে।
আজ ২৪/০৬/২০২০ ইং রোজ বুধবার হরিরামপুর উপজেলার ৯ং কাঞ্চনপুর ইউনিয়ন পরিষদের হল রুমে হরিরামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মুঈদ চৌধুরীর পক্ষ হতে উক্ত ইউনিয়নকে ৯নং বিট হিসেবে ঘোষণা করে এই কার্যক্রম আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন উক্ত থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোঃ- মোশারফ হোসেন।
এসময় অন্যান্যের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন, ৯নং বিট অফিসার এ,এস আই আমিনুর রহমান, ৯নং সহকারী বিট অফিসার এ,এস আই রুহুল আমিন উক্ত ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইউনুস গাজী, উপজেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদস্য সচিব গাজী বণি ইসলাম রূপক, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আবু হেনা মোস্তফা কামাল শফি ও সাধারন সম্পাদক সাইফুল ইসলাম,ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক সাগর হোসেন রনি,স্বেচ্ছাসেবক লীগের অাহব্বায়ক গোপি কৃষাণ সহ ইউ,পি সদস্য ইদ্রিস আলী,মোহাম্মদ জিয়া,ছালাম ফকির,নূরজাহান বেগম প্রমুখ।
 হরিরামপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোঃ- মোশারফ হোসেন দৈনিক অগ্নিশিখা-কে জানান,আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের বিভিন্ন মাপকাঠিতে বাংলাদেশ বিস্ময়কর সাফল্য অর্জন করেছে। উন্নয়নের এ অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে এবং টেকসই করতে হলে টেকসই সুষ্ঠু আইনশৃঙ্খলার কোনো বিকল্প নেই।আর টেকসই আইনশৃঙ্খলার জন্য জনগণের সহযোগিতা ও সম্পৃক্ততা অত্যাবশ্যক।
পুলিশকে গণমুখী ও জনবান্ধব করার জন্য বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। এ ক্ষেত্রে আমরা কমিউনিটি পুলিশিং কার্যক্রমকে উদাহরণ হিসেবে উল্লেখ করতে পারি।আইনগত পরিকাঠামোর সীমাবদ্ধতার মাঝে এসব উদ্যোগ নিঃসন্দেহে পুলিশের ভূমিকাকে আরও উজ্জ্বল করেছে এবং পুলিশের প্রতি জনগণের আস্থার সংকট কাটিয়ে পুলিশ-জনতা সম্পর্কোন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে।
এছাড়া পুলিশের অনিয়মিত উপস্থিতির সুযোগে অপরাধীরাও সক্রিয় হয়ে ওঠে। গ্রাম্য টাউট ও দালালদের দৌরাত্ম্য বৃদ্ধি পায়। এলাকা থেকে অপরাধ, অগ্রিম গোয়েন্দা তথ্যপ্রাপ্তির সুযোগও সীমিত হয়ে পড়ে। পুলিশের নজরদারি হ্রাস পায়।
হরিরামপুর থানাকে ১১টি বিটে বিভক্ত করা হয়েছে। এ অবস্থায় সম্প্রসারিত বিট পুলিশিং সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করা গেলে বর্ণিত সব চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করা সম্ভব।
তিনি আরো জানান, অফিসারগণ সেখানে প্রতি সপ্তাহে নির্দিষ্ট একটা তারিখে একবার অথবা দুইবার ওখানে যাবে। সেখানে গিয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধির সমন্বয়ে এলাকার মাদক, ইভটিজিং, মারামারি, স্থানীয় ছোট খাট সমস্যা, বিবাদ, সাধারন ডাইরীকরণ বিট পুলিশের কার্যালয়ে সমাধান করা হবে। তাছাড়া বিট পুলিশিং কার্যালয়ে সেই সমস্যা সমাধান না হলে তা থানায় স্থানান্তর করা হবে।
উক্ত ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইউনুস গাজী তার ইউনিয়নের সকল জনগনের পক্ষ হতে এই বিট পুলিশিং কার্যক্রমকে সাধুবাদ জানান এবং দায়িত্বপ্রাপ্ত বিট অফিসারদের সার্বিক সহযোগীতার আশ্বাস প্রদান করেন।