হরিরামপুর উপজেলায় নজর কাড়ছে কৃষি কর্মকর্তার ছাদ বাগান”


শাকিল বিশ্বাস, হরিরামপুর (মানিকগঞ্জ):-

মানিকগঞ্জ জেলার হরিরামপুর উপজেলার কৃষি অফিসের তিন তলা ভবনের ছাদে গড়ে উঠেছে সমৃদ্ধ এক ছাদ বাগান। কৃষি বিষয়ে কৃষক ও সাধারণ মানুষকে উদ্বুদ্ধ করা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কাজ। এজন্য কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর বিভিন্ন কর্মসূচি হাতে নিয়ে থাকে।ব্যাক্তিগত উদ্যোগে ও নিজ অর্থায়নে প্লাস্টিকের ড্রাম দিয়ে এবার নিজেদের অফিসের ছাদে বাগান করে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মাদ জহিরুল হক।

এই ছাদ বাগান দেখতে স্থানীয়রা ছাড়াও দূরদূরান্ত থেকে ছুটে আসছেন অনেক কৃষক, উৎসাহী জনতা, সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা আর বেকার যুুুবকরা। হরিরামপুর উপজেলার ছাদ বাগানটি রোলমডেলে পরিণত হয়েছে বলে মনে করছেন ওই অধিদফতরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

দেশি-বিদেশি বিভিন্ন রকমের ফলের গাছ, সবজি ও ফুলে পরিপূর্ণ ওই ছাদ বাগান। ছাদ বাগানের মাধ্যমে গ্রিনহাউজ প্রতিক্রিয়ার কবল থেকে রক্ষা পাওয়া যায়, পরিবেশ দূষণমুক্ত থাকে, বায়োডাইভারসিটি সংরক্ষণ করা যায়। মনের খোরাক মেটানোর পাশাপাশি তাজা শাকসবজি, ফলমূলের চাহিদাও মেটে।

এছাড়া সব মৌসুমের অধিকাংশ ফল, ফুল ও সবজি সৌন্দর্য আর সৌরভের আয়োজন। ছাদে রয়েছে মাল্টা, থাই- পেয়ারা, কাটিমন আম,করলা, ডাটা শাখে এক অরণ্যময় জগত।

হরিরামপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ জহিরুল হক জানান, ”সাধারন কৃষকদের সাথে কাজ করতে গিয়ে মনে হয়েছে বিভিন্ন ধরনের প্রদর্শনী প্লটের মতো আয়োজন করতে পারলে ছাদ কৃষি সম্পর্কে কৃষকদের ধারনা দেয়া ও বেকার যুবকদের আত্মকর্মসংস্থানে উদ্বুদ্ধ করা যাবে,এতে করে যুবসমাজ মাদকাসক্ত থেকে বিরত থাকবে। তিনি আরোও বলেন কৃষকদের প্রশিক্ষণের পাশাপাশি ছাদে নিয়ে দেখানো হয় যাতে তারা তাদের বাড়িতে চাষ করতে পারে। এছাড়া হরিরামপুরে ২৬টি মাল্টা বাগানের প্রজেক্ট করা হয়েছে।আগামীর কৃষি হবে বানিজ্যিক। নতুন নতুন লাভজনক ফসল উৎপাদনে আমাদের মনোযোগী হতে হবে। ছাদ বাগান থেকে উৎপাদিত স্বাস্থসম্মত খাদ্য শরীরের জন্য যেমন নিরাপদ, একইভাবে তা অনুকুল পরিবেশ ও আবাসন স্থানকে দূষণমুক্ত রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। সৃজন এ বাগান স্থাপনের জন্য সাধারণ মানুষের মাঝে সাড়া জাগিয়ে তুলতে কৃষি বিভাগ থেকে পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।