বিতর্কের পর আবারও শুটিং বন্ধ করলো নাটকের ১৯ সংগঠন


 

করোনাভাইরাস সংক্রমণ রুখতে প্রায় দেড় মাস ধরে নাটকের শুটিং বন্ধ রাখা হয়েছিল। কিন্তু ঈদকে সামনে রেখে শুটিংয়ের অনুমতি চেয়েছিলেন কিছু প্রযোজক, পরিচালক ও শিল্পীরা। এর ফলে রোববার থেকে শর্ত সাপেক্ষে শুটিং চালু করার অনুমতি দিয়েছিলো আন্তঃসংগঠনগুলো।

টেলিভিশন প্রোগ্রাম প্রডিউসারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (টেলিপ্যাব), ডিরেক্টরস গিল্ড, শিল্পী সংঘ টিভি নাটকের এমন ১৯ সংগঠনের সমন্বয়ে গঠিত এই আন্তঃসংগঠনের এমন সিদ্ধান্তে রেগেছিলেন অনেকেই। করোনাভাইরাসের আক্রান্তের সংখ্যা যখন ক্রমাগত বেড়ে চলেছে তখন শুটিং শুরু করলেন নাটকের অনেক মানুষও এই ভাইরাসে আক্রান্তু হওয়ার সম্ভাবনা থেকে যায়।

তাই এমন সিদ্ধান্তে অনাস্থা জানিয়ে অনেকে অভিযোগ করছেন, সদস্যদের কথা চিন্তা না করে নেতারা নিজেদের স্বার্থেই এসব সিদ্ধান্ত গ্রহণ করছেন। যা মেনে নেয়া যায় না। এমন বিতর্কের মুখে পড়েই আবারও শুটিং বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছেন সংগঠনগুলো।

আন্তঃসংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকবৃদ্ধের সাক্ষরকৃত এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‌‌‘টেলিভিশন মাধ্যমের সংশ্লিষ্ট সকলের অবগতির জন্য জানানো যাচ্ছে যে, ইতোপূর্বে আন্তঃসংগঠন কর্তৃক প্রদত্ত নোটিশে বলা হয়েছিলো আমরা বর্তমান সময়ে শুটিং কার্যক্রম শুরু করার বিপক্ষে । যেহেতু সরকার দোকানপাট সিমিত আকারে চালু এবং লকডাউন সাময়িক শিথিল করায় আমরাও সাময়িক শিথিলতার পক্ষে অবস্থান নিয়েছিলাম।

একই সাথে নোটিশে এও বলা ছিলো যে শর্ত সাপেক্ষে দেয়া এই সিদ্ধান্ত সমূহ যে কোন সময় বাতিল হতে পারে। যেহেতু বর্তমানে করোনা পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ আকার ধারন করছে তাই আন্তঃ সংগঠন তাদের স্ব স্ব সংগঠন সমূহের সদস্যদের সুচিন্তিত মতামত ও জোরালো দাবীর প্রেক্ষিতে সাময়িক শিথিল অবস্থান থেকে সরে আসার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

একই সাথে দেশের স্বনামধন্য সাংস্কৃতিক ব্যাক্তিত্ব জনাব সৈয়দ হাসান ইমাম, আবুল হায়াত এবং বিশিষ্ট অভিনেত্রী, সংসদ সদস্য সুবর্ণা মুস্তাফাসহ সংগঠন সমূহের উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্যবৃন্দ বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় শুটিং কার্যক্রম স্থগিত রাখার জন্য আহবান জানালে, আন্তুঃসংগঠন রোববার বিকেলে এক জরুরী সভায় মিলিত হয়ে সকল সংগঠনের সদস্যগন ও উপদেষ্টা মণ্ডলীর মতামতের যৌক্তিকতা পর্যালোচনা করে সবধরনের শুটিং কার্যক্রম স্থগিত রাখার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিয়েছে।’

জানানো হয়, সরকারের ঘোষণার সাথে সমন্বয় করে আসবে পরবতী সিদ্ধান্ত। ইতিমধ্যে যারা শুটিং শুরু করেছেন তাদের প্রতি অনুরোধ করা হয়েছে দ্রুততম সময়ের মধ্যে কাজটি সম্পন্ন করতে।