চার ম্যাচের হতাশা শেষে চেলসির স্বস্তি


অবশেষে প্রিমিয়ার লিগে জয়ে ফিরলো চেলসি। আগের চার ম্যাচে দুটি করে ড্র ও হারে চতুর্থ স্থানে তাদের অবস্থান নড়বড়ে হয়ে পড়েছিল। শনিবার টটেনহাম হটস্পারের বিপক্ষে ২-১ গোলের গুরুত্বপূর্ণ জয়ে জায়গাটা পাকা করলো ব্লুরা।

এবারের লিগ মৌসুমে ১৪টি হোম ম্যাচে এটি ছিল চেলসির ষষ্ঠ জয়। ২৭ ম্যাচে ৪৪ পয়েন্ট নিয়ে পরের চ্যাম্পিয়নস লিগ খেলার টিকিট পাওয়ার দৌড়ে ভালোভাবে টিকে থাকলো তারা। ৪ পয়েন্ট পেছনে থেকে পঞ্চম স্থানে টটেনহাম (৪০)।

লিগে টানা তিন জয়ের পর লন্ডন প্রতিদ্বন্দ্বীর মুখোমুখি হয়েছিল টটেনহাম। কিন্তু সন হিউং মিন ও হ্যারি কেইনের অনুপস্থিতিতে জয়যাত্রা ধরে রাখতে পারেনি। আগের ম্যাচ ছিল চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ ষোলোতে, প্রথম লেগের ম্যাচটি তারা ১-০ গোলে হেরে যায় আরবি লাইপজিগের কাছে।

নভেম্বরের পর প্রথমবার চেলসির একাদশে জায়গা পান অলিভিয়ের জিরুদ। সুযোগ পেয়েই দলকে এগিয়ে দেন ১৫ মিনিটে। ফ্রাঙ্ক ল্যাম্পার্ড কোচ হওয়ার পর সপ্তমবার একাদশে ঢোকেন মার্কো আলোনসো। স্টামফোর্ড ব্রিজে দ্বিতীয়ার্ধের তৃতীয় মিনিটে বাঁ পায়ের শটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন এ স্প্যানিয়ার্ড।

জয়ের ব্যবধান আরও বড় হতে পারতো। টটেনহাম গোলকিপার উগোল লরিস কয়েকটি দারুণ সেভে সেটা হতে দেননি। তাছাড়া আলোনসোর একটি বাঁকানো ফ্রি কিক গোলবারের ওপর দিয়ে যায়।

৮৯ মিনিটে আন্তোনিও রুদিগারের আত্মঘাতী গোল টটেনহামকে কিছুটা আশাবাদী করে তুলেছিল। তবে পারেনি ম্যাচে ফিরতে। তাতে এ মৌসুমে দ্বিতীয়বার সাবেক চেলসি কোচ হোসে মরিনিয়োর দলকে হারানোর স্বাদ পেলেন ল্যাম্পার্ড। গত ডিসেম্বরে স্পারদের মাঠে ২-০ গোলে জিতেছিল ব্লুরা।