খালেদা জিয়ার চিকিৎসা হলে ‘প্রেস ব্রিফিং’ হতো না : খসরু


 

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, খালেদা জিয়ার চিকিৎসা হলে ‘প্রেস ব্রিফিং’ হতো না।

তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার চিকিৎসার বিষয়ে হাসপাতালে প্রেস ব্রিফিং করার কথা। চিকিৎসা হলে কি প্রেস ব্রিফিং লাগে? মানুষ কি এমন বোকা? রোগী আর রোগীর আত্মীয়স্বজন এমন বোকা? বাংলাদেশে এখন সবাই সরকারের লোক। সবাই এখন একই কথা বলে, চিকিৎসক থেকে শুরু করে সবাই এখন একই কথা বলে। ওনাদের প্রেস কনফারেন্সের কোনো মূল্য নেই। বাংলাদেশের মানুষের কাছে এসব প্রেস কনফারেন্সের কোনো মূল্য নেই। তাদের বিশ্বাসযোগ্যতা বাংলাদেশের মানুষের কাছে নেই।

সোমবার (২৮ অক্টোবর) দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী সাংস্কৃতিক দল আয়োজিত এক প্রতিবাদী নাগরিক সমাবেশে এসব কথা বলেন তিনি।

‘চিকিৎসা নিয়ে রাজনীতির প্রয়োজন ছিল না’ এমনটি উল্লেখ করে বিএনপির এই জ্যেষ্ঠ নেতা বলেন, বাংলাদেশের সংবিধান অনুযায়ী খালেদা জিয়ার চিকিৎসা পাওয়ার কথা। চিকিৎসা নিয়ে রাজনীতি করার কোনো প্রয়োজন ছিল না। কেন সরকার রাজনীতি করছে? তারা খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলা দিয়ে জেলে পাঠিয়েছে, মিথ্যা কথা বলে তাকে চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত করছে। ধীরে ধীরে তাকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেয়ার জন্য তারা মিথ্যা কথা বলছে।

‘ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য ভারতের কাছে স্বার্থ বিসর্জন দিয়েছে’ দাবি করে আমীর খসরু বলেন, বাংলাদেশে যাদের ভোটের দরকার নেই, জনগণের কাছে যাওয়ার দরকার নেই; তারা বাংলাদেশের জনগণের স্বার্থ কেন দেখবে? তারা সেই কাজটিই করেছে। জনগণের স্বার্থ বিসর্জন দিয়ে নিজেদের স্বার্থ পূরণ করেছে। তারা ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্যই দেশের স্বার্থ বিসর্জন দিয়েছে।

‘খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার একমাত্র পথ সংগ্রাম’ উল্লেখ করে তিনি বলেন, নেলসন ম্যান্ডেলাসহ বিশ্বের গণতান্ত্রিক নেতারা জেল থেকে এমনিতেই বের হননি। সংগ্রামের মাধ্যমে, একতার মাধ্যমে বের হয়েছেন। আমাদেরও সংগ্রাম করতে হবে।

সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি হুমায়ুন করিব ব্যাপারী। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন- বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মেজর জেনারেল (অব.) রুহুল আলম চৌধুরী, সুকোমল বড়ুয়া, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, বিএনপি নেতা ফরিদ উদ্দিন, শিরিন সুলতানা প্রমুখ।