‘প্রস্তুতি সর্বোচ্চ, অপেক্ষা মাঠে দেখানোর’


নতুন কোচ রাসেল ডোমিঙ্গোর অধীনে যে সপ্তাহে দুয়েকের অনুশীলন ক্যাম্প করেছে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল, তাতে ছিলো নতুনত্বের ছোঁয়া। বাংলাদেশের ক্রিকেটের অনুশীলনের চিরায়ত ধারাটাই বদলে দিয়েছেন এ দক্ষিণ আফ্রিকান কোচ।

আগে যেমন একই দিনে ফিটনেস ট্রেনিংয়ের পর ব্যাটিং, বোলিং ও ফিল্ডিং অনুশীলন করানো হতো, এবার হয়নি তেমন কিছু। বরং সবকিছুর জন্য বরাদ্দ আলাদা পুরো একটি দিন। যেমন যেদিন বোলিং অনুশীলনের সূচি ছিলো, সেদিন শুধু বোলিং অনুশীলনই করেছেন বোলাররা; করতে হয়নি ক্যাচিং কিংবা ফিল্ডিং।

আবার ব্যাটসম্যানরা যেদিন ব্যাটিং অনুশীলনের জন্য নেমেছেন, সেদিনের পুরোটা সময় তাদের কেটেছে নেট সেশন, ইনডোর বা মিরপুর সেন্টার উইকেটে ব্যাটিং করে। এভাবে অনুশীলন করায় সবকিছুর দিকে বাড়তি মনোযোগ দিতে পেরেছেন ক্রিকেটাররা।

আগে একই দিনে সবকিছু করায়, হয়ে যেত জগাখিচুড়ি অবস্থা। এবার আর তা হয়নি। যা দলের প্রস্তুতিতে বেশ কাজে লেগেছে বলে অভিমত অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের। আফগানিস্তানের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টের আগে দল সর্বোচ্চ প্রস্তুতিটাই নিয়েছে বলে বিশ্বাস সাকিবের।

আফগান স্পিনারদের বিপক্ষে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের চ্যালেঞ্জটা বেশ কঠিন হলেও, ব্যাটসম্যানদের প্রস্তুতিতে পূর্ণ আস্থা রয়েছে সাকিব। তাই তো ম্যাচ পূর্ববর্তী আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে সাকিব বলেন, ‘ব্যাটসম্যানদের চ্যালেঞ্জ তো অবশ্যই থাকবে। ওদের যারা ফাস্ট বোলাররা আছে তারাও ভালো মানের বোলার। আর স্পিনাররাও খুবই ভালো বোলার। তাই স্বাভাবিকভাবেই আমাদের ব্যাটসম্যানদের জন্য অনেক বড় চ্যালেঞ্জ অপেক্ষা করছে। তবে আমি আমার ব্যাটসম্যানদের ওপর পুরোপুরি আত্মবিশ্বাসী।’

অনুশীলনে দলের সবাই নিজেদের সেরাটা দিয়েছে জানান সাকিব। এখন অপেক্ষা শুধু মাঠে প্রস্তুতির সেরাটা দেখানোর, ‘গত দুই সপ্তাহে যে প্রস্তুতি হয়েছে, তার চেয়ে বেশি আশা করা আমার কাছে উচিৎ মনে হয় না। সবাই যার যার জায়গা থেকে সেরাটা দেয়ার চেষ্টা করেছে। শুধু মাঠে ঐ প্র্যাকটিসটা যদি প্রদর্শন করতে পারি, আমার মনে হয় যে আমরা ভালো কিছু করতে পারব।’

রশিদ খান, জহির খান, মোহাম্মদ নবীদের বিপক্ষে টাইগার ব্যাটসম্যানদের যেমন বড় চ্যালেঞ্জ, তেমনি বোলারদের জন্যও কাজটা সহজ নয়। কেননা টেস্ট আঙিনায় এখনও নবীন দল আফগানিস্তান। তাদের ব্যাটিং অ্যাপ্রোচ কেমন হবে তা আগেভাগে ধারণা করা মুশকিল। নিজেদের স্বাভাবিক ব্যাটিং করলে হয়তো টেস্ট ক্রিকেটেও দেখা যেতে পারে মারকাটারি ব্যাটিংয়ের প্রদর্শনী।

এ বিষয়টি মাথায় আছে টাইগার অধিনায়ক সাকিবেরও। তাই তার বার্তা হলো নিজেদেক কাজ ঠিকঠাক করা। সাকিব বলেন, ‘আমার মনে হয় যে এটা একটা গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট। তবে আমার মনে হয় যে, ওদের প্রস্তুতি ম্যাচের কথাটাও মাথায় রাখতে। সেখানে দুই দিনের ম্যাচেও ওরা অনেক ধৈর্য্যের পরিচয় দিয়েছে, দুই ওপেনার অনেক সময় নিয়ে ব্যাটিং করেছে। বেশ ভালো খেলেছে ওরা। তাই সবকিছুই আসলে এখানে বিবেচনার বিষয়। আমাদের মূল দায়িত্ব হলো বেসিক কাজগুলো ঠিকভাবে করা। আমরা যদি এটি ঠিকভাবে করতে পারি, মনোযোগ ধরে রাখতে পারি- তাহলে আমরা ভালো কিছু করতে পারব।’