সাকিবকে পেতে মরিয়া রংপুর


আফগানিস্তান আসছে। আগামী ৫ সেপ্টেম্বর থেকে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে এক মাত্র টেস্ট শুরু। তারপর ১৩ সেপ্টেম্বর থেকে শেরেবাংলায় পর্দা উঠবে জিম্বাবুয়ে, আফগানিস্তান আর বাংলাদেশকে নিয়ে তিন জাতি টি-টোয়েন্টি সিরিজের। এখন চলছে তারই প্রস্তুতি।

প্রাথমিকভাবে কন্ডিশনিং ক্যাম্প চলছে। এর মধ্যে আজ (মঙ্গলবার) সকালে ঢাকা পৌঁছেছেন পেস বোলিং কোচ চার্লস ল্যাঙ্গাভেল্ট। নতুন হেড কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো রাজধানীতে এসে পা রেখেছেন সবে। কাল তার জাতীয় দলের অনুশীলনে শেরেবাংলা স্টেডিয়ামেও যাওয়ার কথা।

মোদ্দা কথা, এখন যত কথাবার্তা, সব মনোযোগ-ফোকাস থাকার কথা জাতীয় দলের ওপর। কিন্তু তা ছাপিয়ে একটি বিষয় নিয়ে উৎসাহ-আগ্রহ ক্রিকেট অনুরাগী তথা সাকিব, মাশরাফি, তামিম-মুশফিক ভক্তদের।

কি হবে সাকিবের? শেষ পর্যন্ত কি ঢাকা ডায়নামাইটসেই খেলতে হবে? নাকি রংপুুর রাইডার্সই হবে নতুন ঠিকানা? কোথায় খেলবেন মাশরাফি? পুরনো দল রংপুরেই থেকে যাবেন, না এবার কোন নতুন দলে নাম লেখাবেন জাতীয় দলের ওয়ানডে অধিনায়ক? সবার মধ্যে কৌতূহল। সেজন্য বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল আর ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর বৈঠকের দিকে চোখ সবার।

আজ দুপুরের পর শেরেবাংলায় হয়ে গেল রংপুর রাইডার্স আর বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল কর্তাদের আলোচনা। সে আলোচনার পর উপস্থিত সাংবাদিকদের রংপুর রাইডার্স প্রধান নির্বাহী ইশতিয়াক সাদেক পরিষ্কার জানিয়ে দিলেন, ‘যদি বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল নিয়ম করে যে, অন্তত একজন আইকন বা এ প্লাস ক্যাটাগরির ক্রিকেটার দলে ভেড়ানো যাবে- তাহলে তারা অবশ্যই সাকিবকে নিতে চাইবে এবং সেটা সর্বোচ্চ চেষ্টা দিয়ে।’

রংপুর সিইও বলেন, বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল অন্য সব ফ্র্যাঞ্চাইজির মতো তাদের মানে রংপুরের কাছেও প্রস্তাবনা বা পরামর্শ চেয়েছিল। তাই তারা প্রস্তাব হিসেবে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের কাছে একটি বিশেষ আবেদন করেছেন। তাদের দাবি,  দল সাজাতে অন্তত অল্প কজন ক্রিকেটারকে আগে থেকে দলভুক্ত করা এবং রেখে দেয়ার নিয়ম থাকলে ভালো ও সুবিধা হয়।

এ সম্পর্কে ইশতিয়াক বলেন, ‘আমাদের সাজেশন ছিল যেহেতু একটা টিম দুই বছর ধরে একভাবে খেলে আসছে, পরবর্তী চার বছর খেলার জন্য টিমের একটা কোড দরকার। টিমের কিছু খেলোয়াড় রিটেইন করার ব্যাপার আছে। সে রিটেনশন চেয়েছি আমরা। গত বছরের নিয়ম অনুসারে কিছু ফ্রেশ সাইনিং ছিল, বোর্ড সেটা নিতে চাচ্ছে। আইকন প্লেয়ার বলে কিছু নাকি থাকবে না। একজন লোকাল ডাইরেক্ট সাইনিংটা যেটা আমরা বাধ্যতামূলক চেয়েছি। বোর্ড বলছে ফরেন ডাইরেক্ট সাইনিং (বিদেশি খেলোয়াড়) দুজন অথবা তিনজন করবে। আমরা বললাম যেহেতু ফরেন ডাইরেক্ট সাইনিং করবে, তাহলে কেন লোকাল (দেশি) ডাইরেক্ট সাইনিং নয়?’

প্রশ্ন ছিল, স্থানীয়দের সরাসরি চুক্তিবদ্ধ করার সুযোগ মিললে সাকিবের দিকে যাবেন? রংপুর সিইওর চটজলদি জবাব, ‘যেহেতু রংপুর রাইডার্স সাকিবের সঙ্গে চুক্তি করেছে। তাকে সইও করিয়েছে। কাজেই তার দিকে তো অবশ্যই যাবে।’